ফ্যান ক্যাস ৯ এডিটর লিংকড ইউনিফর্ম ডিটেকশন ‘ফে লু দা’

0

Last Updated on October 12, 2020 10:50 AM by Khabar365Din

সৌগত সরকার। ৩৬৫ দিন।

দিল্লির ইনস্টিটিউট অফ জেনোমিক্স অ্যান্ড ইন্টিগ্রেটেড বায়োলজির সত্যজিৎ ভক্ত দুই বাঙালি বিজ্ঞানী দেবজ্যোতি চক্রবর্তী এবং সৌভিক মাইতি এই করোনা ডিটেকশন কিটের আবিষ্কর্তা। খরচ পড়বে ৫০০ টাকা।

প্রদোষ চন্দ্র মিত্র এবার অন্য অনুসন্ধানে নামছেন। এই শত্রুকে চোখে দেখা যায় না। কোনও সূত্র ও ফেলে যায় না। কিন্তু ফেলুদার চোখ এড়াতে পারবে না।  এ বার করোনা আক্রান্তের হদিস দেবে ফেলুদা! এক ঘণ্টারও কম সময়ে সন্ধান দেবে করোনা আক্রান্তের।

দেশে কোরোনা সংক্রমণ যখন প্রাথমিক পর্যায়ে সেই সময়ে দুই বাঙালি গবেষক শৌভিক মাইতি ও দেবজ্যোতি চক্রবর্তী এমন একটি পেপার স্ট্রিপ তৈরি করেন যা কয়েক মিনিটের মধ্যেই কোভিড আক্রান্ত কিনা বোঝা যাবে। এই দুই বাঙালি বিজ্ঞানী বর্তমানে কাউন্সিল অব সায়েন্টিফিক এন্ড ইনড্রাস্টিআল রিসার্চ এর ইনস্টিটিউট অফ জেনোমিক্স এন্ড ইন্টিগ্রেটিভ বায়োলজিতে কর্মরত। দেবজ্যোতির স্ত্রী এই ফেলুদা নামকরণের প্রথম প্রস্তাব দেন। দুই সত্যজিৎভক্ত তৎক্ষণাৎ রাজি হয়ে যান তাঁদের গবেষণার সঙ্গে ফেলুদার নাম জড়িয়ে নিতে।
এই ‘ফেলুদা’ অবশ্য বাংলা সাহিত্যের গোয়েন্দা নয়, তবে দুই বাঙালি বিজ্ঞানীর তৈরি করোনা টেস্ট কিট।দেশের প্রথম ‘ক্লাস্টার্ড রেগুলারলি ইন্টারস্পেসড শর্ট পালিনড্রোমিক রিপিট’ ভিত্তিক করোনা পরীক্ষার কিট তৈরি করেছেন দিল্লির ‘ইনস্টিটিউট অব জেনোমিক্স অ্যান্ড ইন্টিগ্রেটিভ বায়োলজি’র দুই বাঙালি বিজ্ঞানী দেবজ্যোতি চক্রবর্তী এবং সৌভিক মাইতি।এই উদ্যোগে সামিল টাটা গোষ্ঠীও। কেন এই করোনা টেস্ট কিটের নাম ‘ফেলুদা’? এখানে ফেলুদা’-র পুরো কথাটা হল ফ্যান ক্যাস ৯ এডিটর লিংকেড ডিটেকশন আসায়, অর্থাৎ ফে লু দা । যেখানে করোনা পরীক্ষার ফলাফল পেতে ৪ ঘণ্টা সময় লাগে, সেখানে ‘ফেলুদা’ ১ ঘণ্টারও কম সময়ে জানিয়ে দেবে ফলাফল। এছাড়া এর খরচও অনেক কম। বিদেশি সংস্থার কিটে করোনা পরীক্ষার জন্য যেখানে খরচ হয় দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা, সেখানে ফেলুদার সাহায্যে এই পরীক্ষায় খরচ হবে মাত্র ৫০০-৬০০ টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here