অভিষেকে অসহায় বিপ্লব, আগরতলায় যুদ্ধের পরিবেশ
আগরতলায় অভিষেক সসম্মানে রাজীবকে ঘরে ফেরালেন

0

Last Updated on October 31, 2021 9:48 PM by Khabar365Din

রিপোর্ট ও ছবি – অমিত বন্দ্যোপাধ্যায়
৩৬৫দিন। ত্রিপুরা হাইকোর্টে ঘাড়ধাক্কা খেয়েও লজ্জা নেই। কোভিড টেস্টের ফ‍্যাকড়া তুলে অভিষেকের সভা বানচাল করতে মরিয়া নির্লজ্জ বিপ্লব দেব সরকার। করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট নিয়ে যাওয়া সত্ত্বেও ইচ্ছাকৃতভাবে হেনস্থা করা হচ্ছে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের। রীতিমতো আটকে রেখে জোর করে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে তাদের। তৃণমূলের অভিযোগ হাইকোর্টে তীব্র ঝাড় খাওয়ার পরও নির্লজ্জ ভাজপা। ত্রিপুরায় পায়ের তলার মাটি দ্রুত খসে পড়েছে বুঝতে পেরে তৃণমূলের ওপর প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে তারা। যেন-তেন প্রকারেণ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর জনসভা বানচাল করার চেষ্টা করছে। যদিও এতে লাভের লাভ কিছু হবেনা তৃণমূলের শক্তি আরো বাড়ছে এবং আগামী দিনে আরও পরবর্তী বিধানসভা নির্বাচনে রেকর্ড আসন পেয়ে ত্রিপুরা দখল করবে তৃণমূল।রবিবার সকালের বিমানেই কলকাতা থেকে ত্রিপুরায় পৌঁছে যান অভিষেক।

- Advertisement -

দুপুর দেড়টা নাগাদ রবীন্দ্রভবনের জনসভা মঞ্চে পৌঁছে গিয়েছেন অভিষেক। সভামঞ্চে রয়েছেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ও। এই মঞ্চ থেকেই তৃণমূলে যোগ দেবেন তিনি। রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও ত্রিপুরার বিজেপি ত্যাগী বিধায়ক আশিস দাসও তৃণমূলে যোগ দেবেন। এদিন বিমানবন্দরে অভিষেক পৌছানোর পরই তাকে ঘিরে প্রবল উন্মাদনা দেখা যায়। অভিষেক কে স্বাগত জানাতে বিমানবন্দরে হাজির ছিল অসংখ্য তৃণমূল নেতাকর্মীরা।
অভিষেকের ত্রিপুরা সফর রুখতে কোভিড রিপোর্টের নামে তৃণমূল নেতাকর্মীদের ওপর যথেচ্ছাচার করছে ভাজপা সরকার। শনিবারই ত্রিপুরা সরকার অভিষেক কে রুখতে নয়া নির্দেশিকা জারি করে জানায় ৩০ অক্টোবর থেকে রাজ্যে ঢুকতে গেলে কোভিড রিপোর্ট বাধ্যতামূলক। এই নির্দেশিকা কে কাজে লাগিয়েই রবিবার ভোর থেকেই তৃণমূল নেতাকর্মীদের আটকাতে শুরু করেছে বিপ্লব দেবের পুলিশ। অভিযোগ, কোভিদ নেগেটিভ রিপোর্ট থাকা সত্বেও নতুন করে কোভিড টেস্ট করানো হচ্ছে বিমানবন্দরে। জালিয়াতি করে সেই রিপোর্টকে পজিটিভ দেখিয়ে অসংখ্য নেতাকর্মীদের ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইন এ পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে । এমনকি, শনিবার রাতেই যারা ত্রিপুরায় গিয়ে পৌঁছেছে। তাদের সকলের ডবল ডোজ ভ্যাকসিন নেওয়া সত্ত্বেও কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে তাদের আগরতলার একটি বিল্ডিং কার্যত বন্দি করে রাখা হয়েছে। যদিও ত্রিপুরা প্রশাসনের দাবি, এদের কোভিড টেস্ট রিপোর্ট নেই। করোনা পরীক্ষা করানোর জন্য তাদের বাইরে বেরতে দেওয়া হচ্ছে না। তৃণমূলের অভিযোগ, প্রশাসন যদি চাইত গতকালই প্রত্যেকের কোভিড টেস্ট করিয়ে আজকের মধ্যে রিপোর্ট দিয়ে দিত। কিন্তু উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই আজকে তাদের কোভিড পরীক্ষা করানো হচ্ছে আর রিপোর্ট আসবে ২৪ ঘন্টা বাদে। ফলে আজ অনেকেই অভিষেকের জনসভায় যোগ দিতে পারবে না। এদিকে, ভাজপার সমস্ত বাধা টপকে সকাল থেকেই ত্রিপুরার পরিবর্তনকামী সাধারণ মানুষ দলে দলে রবীন্দ্র ভবনের সভাস্থলে জড়ো হতে শুরু করেছে। অভিষেকের সভামঞ্চে হাজির হয়েছেন রাজ্যসভার সংসদ সুস্মিতা দেব, তৃণমূল নেতা কুনাল ঘোষ, সুবল ভৌমিক সহ অন্যান্য তৃণমূল নেতারা। সভামঞ্চে থেকে সুস্মিতা দেব বলেন, ত্রিপুরায় বিজেপির বিরুদ্ধে একমাত্র লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে তৃণমূল। সিপিএম কংগ্রেস ত্রিপুরায় শুয়ে পড়েছে। ত্রিপুরার মানুষ বিজেপির সরকারের থেকে মুক্তি চাইছে। ত্রিপুরায় পরিবর্তন আনবে শুধুমাত্র তৃণমূল। এদিকে তৃণমূলের মুখপাত্র ডেরেক ও ব্রায়েন টুইট করে বিপ্লব দেবের সরকারের বিরুদ্ধে বলেন, গোটা ত্রিপুরার রাজ্য জুড়ে গুন্ডারাজ চলছে।

রাজীব বন্দোপাধ্যায়ের তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন

৯ মাস পর ভাজপা ছেড়ে তৃণমূলে ফিরলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবার ত্রিপুরায় তৃণমূলের জনসভার মঞ্চ থেকে অভিষেক তার হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন। তৃণমূলের প্রত্যাবর্তনের পর রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বিজেপিতে যোগ দিয়ে ভুল করেছিলাম। আমায় ভুল বুঝিয়ে ছিলো বিজেপি।রাগ ও জেদের বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। আমি আমার ভুল স্বীকার করছি।মমতা বন্দোপাধ্যায়কে বুঝতে ভুল করেছিলাম। আমি অনুতপ্ত।
বিধানসভা নির্বাচনের আগে মন্ত্রিত্ব ও তৃণমূলের সদস্য পদ ছেড়ে ভাজপায়ে যোগ দিয়েছিলেন রাজীব। শনিবারই রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ত্রিপুরায় পৌঁছে যান। আগরতলার জিনজার নামের এক হোটেলে ওঠেন তিনি। হোটেল থেকেই রবীন্দ্র ভবনে অভিষেকের জনসভায় পৌঁছে যান রাজীব। সূত্রের খবর, আপাতত রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে ত্রিপুরার সাংগঠনিক দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে।

Advertisement