করোনা সংক্রমণ এড়াতে এবারের পুজোয় রাজ্যের স্পেশাল গাইডলাইন

0
696

৩৬৫ দিন: করোনা পরিস্থিতিতে নিউ নর্মাল দুর্গাপুজো। আর এই নিউ নর্মাল দুর্গাপুজো করার জন্য কী কী প্রস্তুতি নিতে হবে, তার জন্য স্পষ্ট গাইডলাইন জারি করল রাজ্য সরকার। বাঙালির সবথেকে বড় উৎসব দুর্গাপুজো করার অনুমতি দিলেও মুখ্যমন্ত্রী আগেই জানিয়েছিলেন যাবতীয় সুরক্ষা বিধি এবং সংক্রমণ এড়াতে প্রয়োজনীয় সমস্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করেই পুজোর আয়োজন করতে হবে। কিন্তু কোনভাবেই যেন দুর্গা পুজোর সময় অসাবধানতাবশত সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে না পারে, তার জন্য প্রশাসনের সমস্ত স্টরে কড়া নজরদারির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে নবান্ন থেকে। ইতিমধ্যেই কলকাতার পাশাপাশি বিধান নগর এবং ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেট এলাকাতেও নির্মীয়মান প্রতিটি পূজো মন্ডপ সমস্ত নির্দেশিকা মেনে তৈরি হচ্ছে কিনা তার উপরে কড়া নজরদারি শুরু করেছে পুলিশ।
অন্যান্য বছরের তুলনায় যতটা সম্ভব সমস্ত দিক ফাঁকা রেখে মন্ডপ তৈরি করতে হবে বলে আগেই জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। রাতে সরকারের জারি করা নির্দেশিকায় জানিয়ে দেওয়া হয়েছে পুজোর সময় পুজো মণ্ডপ অথবা সংলগ্ন এলাকায় কোন ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা যাবে না। মাস্ক না পরে কোন দর্শনার্থী মণ্ডপে চলে এলে ঢোকার আগেই স্বেচ্ছাসেবকদের সাহায্যে তাদের মাস্ক দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। প্রচুর সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবককে মাস্ক স্যানিটাইজার-সহ সর্বত্র মোতায়েন রাখতে হবে।
পুজোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান যথাসম্ভব অনলাইনে করতে হবে। পুজো উপলক্ষ্যে করা যাবে না কোনও মেলা বা উৎসবের আয়োজন। এবার কোনও কার্নিভালও হবে না। বিভিন্ন সংগঠনের তরফ এ পুজোর পুরস্কার ঘোষণা এবং বিচারকদের মণ্ডপে ঢোকা নিয়ন্ত্রণ করতে যথাসম্ভব অনলাইনে সেরা পুজো নির্বাচনী প্রক্রিয়া করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। অঞ্জলি দেওয়ার সময়ে পুরোহিতদের মাইক্রোফোন দিতে বলা হয়েছে, যাতে ভিড় এড়িয়ে দূর থেকে মন্ত্র পড়তে পারেন। সিঁদুরখেলার সময়েও মানতে হবে দূরত্ববিধি। পাশাপাশি প্রতিটি এলাকার পুরো কর্তৃপক্ষ এবং গ্রাম পঞ্চায়েত এর পক্ষ থেকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার পাশাপাশি এলাকার প্রতিটি পূজা মণ্ডপে যেন প্রার্থীর কোনমতে না হতে পারে তার জন্য স্থানীয় থানার সঙ্গে যোগাযোগ রেখে সুষ্ঠুভাবে সমস্ত ব্যবস্থা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here