চালক ববি। ইলেকট্রিক স্কুটিতে মমতা’র নবান্ন যাত্রা

0

Last Updated on February 25, 2021 5:41 PM by Khabar365Din

রিপোর্ট – শুভায়ন বন্দোপাধ্যায় ও অর্পিতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি – অভীক দাস

- Advertisement -

365দিন। বৃহস্পতিবারের সকালটা ছিল একটু অন্যরকম, আর পাঁচটা দিনের মতন নয়। পেট্রোল, ডিজেল, রান্নার গ্যাসের বিপুল মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকালে মুখ্যমন্ত্রী নবান্নে পৌছলেন গাড়ি করে নয়, বরং ইলেকট্রিক স্কুটি করে। সকাল 11 টা, মুখ্যমন্ত্রী ইলেকট্রিক স্কুটি করে রওনা দেন নবান্নের উদ্দেশ্যে। স্কুটার চালালেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। কেন্দ্রীয় সরকার যেভাবে গ্যাস পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি ঘটিয়েছে তার প্রতিবাদে আজ মুখ্যমন্ত্রী ইলেকট্রিক স্কুটার এর করে নবান্ন পৌঁছান। অভিনব এই প্রতিবাদে ছিল না দলের ফ্ল্যাগ বা প্রতীক। বিরোধীনেত্রী থাকার সময় নন্দীগ্রামে যখন রাস্তাঘাট ভাঙাচোরা, সেই সময় তৃণমূল নেত্রী বাইকে চেপে নন্দীগ্রাম- লালগড় ঢুকেছিলেন। এছাড়া সিঙ্গুর আন্দোলনের সময়ও পুলিশের চোখকে ধুলো দিতে বেশ কয়েকবার বাইকে চেপে মেঠো রাস্তায় নেমেছিলেন তৃণমূলনেত্রী।মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর এই প্রথম মহানগরীর রাজপথে কেন্দ্রীয় সরকারের বর্বরতার প্রতিবাদে সোচ্চার হয়ে ইলেক্ট্রিক স্কুটি করে এদিন নবান্ন পৌঁছালেন তিনি। মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে সকলকে রাস্তায় নামার আহ্বান জানিয়ে নবান্নে পৌঁছে মুখ্যমন্ত্রী বললেন, যেভাবে পেট্রোল ডিজেল রান্নার গ্যাসের দাম ক্রমাগত বেড়েই চলেছে আমরা তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাচ্ছি। কেরোসিন তেল পাওয়া যাচ্ছে না, বাংলায় প্রায় এক কোটি মানুষ কেরোসিন তেল ব্যবহার করেন। রান্নাঘরে আগুন লেগেছে। নরেন্দ্র মোদি সরকার শুধু ভাঁওতা দিয়ে যাচ্ছে, সাধারণ মানুষের পকেট কেটে যাচ্ছে। সাধারণ মানুষকে অসহায় অবস্থার মধ্যে ঠেলে দিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। কৃষকদেরও রেয়াত করা হচ্ছে না। নির্বাচন এলেই ওরা বলে বিনা পয়সায় গ্যাস দেব। এটা গ্যাস নয়, এটা হল ওদের ফানুস, একে মিথ্যা অপপ্রচার কুৎসা হিসেবে ব্যবহার করি আমরা। আমাদের তৃণমূলের আন্দোলন চলছে। আগামীকাল থেকে সারা বাংলা জুড়ে আন্দোলন আরও ব্যাপকভাবে হবে। সারা দেশ জুড়ে সকলকে পথে নামতে বলছি। দেশ বেঁচে দিচ্ছেন মোদি ও অমিত বাবু। বিএসএনএল, কোল ইন্ডিয়া, রেল, ব্যাংক, এলআইসি- সব বিক্রি করে দিচ্ছে। এই সরকার জনগণ বিরোধী সরকার। সর্বনাশী সরকারের আমরা পতন চাই। ওরা ইতিহাস ভূগোল সবকিছু ভুলিয়ে দিচ্ছে। স্টেডিয়ামের নাম পাল্টে দিচ্ছে। আমি জানিনা কবে দেশের নাম বদলে দেবে! খুবই দুর্ভাগ্যজনক। প্রসঙ্গত, প্রতিবাদ কর্মসূচিকে সামনে রেখেই আজ বিকেলে বাড়ি ফেরার সময়ও ইলেকট্রিক স্কুটার চেপেই ফিরবেন মুখ্যমন্ত্রী। উল্লেখ্য, এই মুহূর্তে রাজ্যে প্রায় পাঁচ ছটি অটোমোবাইল সংস্থা আছে যারা ব্যাটারি চালিত স্কুটি উৎপাদন করে থাকে। পেট্রোল ডিজেল রান্নার গ্যাসের ক্রমবর্ধমান মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদের প্রধান অস্ত্র হিসেবে ই-স্কুটিকেই তুলে ধরেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here