মমতা’র রোম সফরের অনুমতি দিল না বিদেশমন্ত্রক

0

Last Updated on September 25, 2021 10:30 PM by Khabar365Din

- Advertisement -

সৌগত মন্ডল।

৩৬৫ দিন।সেই ট্রাডিশন সমানে চলিতেছে। ২০১৮ সালের জুন মাসে চীনের ভাইস প্রেসিডেন্টের সরকারি আমন্ত্রণে মমতার চীন সফর একেবারে শেষ মুহূর্তে বাতিল করা থেকে যে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বিশ্ব শান্তি সম্মেলনে ভারতের একমাত্র প্রতিনিধি হিসেবে মমতাকে সেখানে যাওয়া আটকানোর জন্য সেই পুরনো পন্থা অবলম্বন করল কেন্দ্রের মোদি সরকার। রোমে পোপের উপস্থিতিতে বিশ্ব শান্তি সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে। কিন্তু গোটা বিশ্বের বিভিন্ন ধর্মের সর্বোচ্চ ধর্মগুরুদের পাশাপাশি সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে এক মঞ্চে বসে মমতাকে বক্তব্য রাখার জন্য যে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল সেই অনুষ্ঠান নাকি মুখ্যমন্ত্রীর পদমর্যাদাসম্পন্ন কারো সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় বলে রীতিমতো হাস্যকর অজুহাত দেখিয়ে নরেন্দ্র মোদি সরকারের বিদেশমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে। প্রসঙ্গত, অক্টোবরের ৬ এবং ৭ তারিখে রোমে এই বিশ্ব শান্তি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। যেখানে মমতার পাশাপাশি আমন্ত্রিত ছিলেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মের্কল, মিশরের ইমাম আহমেদ আল তায়িব এবং খ্রিস্ট জগতের ধর্মগুরু পোপ। দীর্ঘকাল ধরে বিশ্বজুড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করছে এই অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তা সংস্থা কমিউনিটি অফ সন্ত এগিডিও।
তবে আন্তর্জাতিক মঞ্চে মমতাকে আটকে রাখার এই প্রবণতা কেন্দ্রের মোদি সরকারের কাছে একেবারেই নতুন নয়। গত তিন বছরের মধ্যে রুমে বিশ্ব শান্তি সম্মেলনে মমতার উপস্থিতি আটকানোর জন্য কেন্দ্রের ভাজপা সরকারের এটা চতুর্থ প্রয়াস। স্বাভাবিকভাবেই একটি অঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন শাসকদলের নিয়ন্ত্রণে থাকা বিদেশ মন্ত্রকের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করা রাজনৈতিক শিষ্টাচার এর বিরোধী বলে মনে করেন মমতা। সেই কারণে মোদি সরকারের এই নিষেধাজ্ঞা তিনি মেনে নেবেন বলে জানা গিয়েছে।

মোদি শাসনে মমতাকে আটকানোর চেষ্টা

২০১৮ সালে আমেরিকার শিকাগো শহরে বিশ্ব ধর্ম সম্মেলনে স্বামী বিবেকানন্দের বক্তৃতার ১২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে মমতাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল রামকৃষ্ণ মিশন। যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছিলেন মমতা। কিন্তু ১১ জুন হঠাৎ তাঁকে চিঠি দিয়ে ২৬ অগস্টের ওই অনুষ্ঠান বাতিল করার কথা জানায় শিকাগোর বিবেকানন্দ বেদান্ত সোসাইটি। কারণ হিসেবে সোসাইটির কিছু অপ্রত্যাশিত অসুবিধার জন্য অনুষ্ঠানটি বাতিল করা হচ্ছে পরে তার শিকাগো সফর বাতিল হওয়া নিয়ে মমতা বলেন, আমাকে ষড়যন্ত্র করে শিকাগো যেতে দেওয়া হয়নি। শিকাগো যেতে না-পারায় কষ্ট পেয়েছি। কারা একাজ করেছে তা আমি জানি। আমার কাছে সব রেকর্ড আছে।

শেষ মুহূর্তে বাতিল মমতার চিন সফর

২০১৮ সালের জুন মাসে চীনের ভাইস প্রেসিডেন্টের বিশেষ সহকারী আমন্ত্রণে ভারতের শিল্পপতি ও বাণিজ্যিক প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিতে মমতার চীন সফরের কর্মসূচি ছিল। ২৩ থেকে ২৭ জুন বেজিং-এ বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকের পাশাপাশি চিনের সঙ্গে কয়েকটি মউ স্বাক্ষরের কথা ছিল তাঁর। ২৭ তারিখ ট্রেনে সাংহাই গিয়ে সেখানে থাকার কথা ছিল ৩০ জুন পর্যন্ত। সেখানে বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বৈঠক ছাড়াও মেয়র কুনমিং-এর সঙ্গে দেখা করার কথা ছিল মুখ্যমন্ত্রীর। ৩০ তারিখ সিঙ্গাপুর হয়ে তাঁর রাজ্যে ফেরার কথা ছিল। কিন্তু এয়ারপোর্টে রওনা হওয়ার মাত্র আধ ঘণ্টা আগে ভারতীয় বিদেশমন্ত্রক এর পক্ষ থেকে তাঁকে সফর বাতিল করার নির্দেশ দেওয়া হয়।

অক্সফোর্ড ইউনিয়ন এর বক্তব্য বাতিল

গতবছর জুলাইয়ে মমতাকে অক্সফোর্ড যাওয়ার আমন্ত্রণ জানায় শতাব্দীপ্রাচীন অক্সফোর্ড ইউনিয়ন ডিবেটিং সোসাইটি। দেশের প্রথম মহিলা মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে এই বিশেষ কৃতিত্ব অর্জন করেন মমতা। রাজ্য সরকারের কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, কৃষক বন্ধু ও দুয়ারে বাংলা-র মতো একাধিক প্রকল্পের সাফল্য নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কথা বলার কথা ছিল। কিন্তু মমতার ভার্চুয়াল বক্তৃতা শুরু হওয়ার কয়েক মিনিট আগে কোন কারণ না দেখিয়ে সেই বক্তৃতা স্থগিত করে দেওয়া হয়। বক্তৃতা বাতিলের পিছনে মোদি সরকারের কলকাঠি নাড়ার বিষয়টি ইঙ্গিত করে পরে মমতা বলেন, আমি অক্সফোর্ড কর্তৃপক্ষকে কিছু বলছি না। তবে কেন এমন হল, সংবাদমাধ্যমের উচিত তা দায়িত্ব নিয়ে খুঁজে বার করা।
শুধু এই সমস্ত বিদেশ সফর নয়, গত ২০১৮ সালেই দিল্লির সেন্ট স্টিফেন্স কলেজে মমতাকে বক্তব্য রাখার আমন্ত্রণ জানিয়েও শেষ মুহূর্তে ভাজপা নেতাদের চাপে তারা আমন্ত্রণ বাতিল করে কর্তৃপক্ষ।


মূলত আন্তর্জাতিক আঙ্গিনায় নরেন্দ্র মোদী ছড়া অন্য কোন নেতা অথবা নেত্রী যেন গুরুত্ব না পান সেই বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য বরাবর অতি সক্রিয়তা দেখিয়েছে কেন্দ্রের ভাজপা সরকার। তার উপরে যখন আন্তর্জাতিক ধর্ম সম্মেলন অথবা বিশ্ব শান্তি সম্মেলনে নরেন্দ্র মোদিকে না আমন্ত্রণ জানিয়ে মমতাকে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে তা মেনে নেওয়া মোদি সরকারের পক্ষে কার্যত অসম্ভব।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here