আলিপুর চিড়িয়াখানায় নতুন সদস্য, কৃত্রিমভাবে ডিম ফুটিয়ে জন্ম গ্রীন ইগুয়ানা, গোসাপ, শাঁখামুটি সাপ

0

Last Updated on July 18, 2022 3:23 PM by Khabar365Din

৩৬৫ দিন। চিড়িয়াখানা পরিবারে যুক্ত হল একগুচ্ছ সদস্য। কৃত্রিমভাবে ডিম ফুটিয়ে জন্মাল হল ২৭ টি গ্রীন ইগুয়ানা। যা আলিপুর চিড়িয়াখানার ইতিহাসে প্রথম। এছাড়াও, গোসাপের ২১ টি এবং শাঁখামুটি সাপের ১০ টি ছানার জন্ম হয়েছে।

- Advertisement -

এই প্রসঙ্গে আলিপুর চিড়িয়াখানার অধিকর্তা আশিষ কুমার সামন্ত জানান, কিছু বছর আগে হায়দ্রাবাদ থেকে ৫ টি গ্রীন ইগুয়ানা আনা হয়। তাদের ডিম সংগ্রহ করেছিল কিপাররা। সেগুলো থেকেই ২৭ টি ছানা হয়েছে। এই প্রথম আলিপুর চিড়িয়াখানায় গ্রীন ইগুয়ানার বাচ্চা হল। গত ১০ এপ্রিল, ডিম সংগ্রহ করা হয়। তারপর, সেগুলোকে ৩০ থেকে ৩৫ ডিগ্রিতে রেখে কৃত্রিম পদ্ধতিতে ডিম ফুটিয়ে ২০ জুন শাবকদের জন্ম হয়।

আশিষ বাবু আরও জানান,এছাড়া গোসাপের ২১ টি বাচ্চা হয়েছে। শাঁখামুটি সাপের ১০ টি বাচ্চা হয়। চিড়িয়াখানা সূত্রে খবর, নতুন অতিথিদের দর্শকদের সামনে আনা হবে শ্রীঘ্রই। এদিকে, গ্রীন ইগুয়ানার কিছু বাচ্চা পাঠানো হবে হায়দ্রাবাদ চিড়িয়াখানায়।
বদলে সেখান থেকে অন্য পশু পাখি আনা হবে আলিপুর চিড়িয়াখানায়। উল্লেখ্য, এর আগে আলিপুর চিড়িয়াখানায় জন্ম নেয় অ্যানাকোন্ডার বাচ্চা।

সেই সময় অধিকর্তা জানান, এক একটি অ্যানাকোন্ডার (ইয়েলো) ওজন ১০০ থেকে ১৫০ গ্রাম। লম্বায় ১ ফুটের কাছাকাছি। নির্দিষ্ট সময়ের পর সাপগুলো খোলস ছাড়বে। তারপর তাদের খাবার জন্যে সাদা ইদুরের ছোট বাচ্চা দেওয়া হবে । ৬ মাস পর এনক্লোসারে দেওয়া হবে এই ৯ টি অ্যানাকোন্ডাকে। আশিসবাবু আরও জানান, এই মুহূর্তে ভারতের যে কোন চিড়িয়াখানার থেকে সবথেকে বেশি অ্যানাকোন্ডা রয়েছে আলিপুর চিড়িয়াখানায়।

চিড়িয়াখানার তথ্য অনুযায়ী, শুরুটা হয়েছিল ২০১৯ সালে। আলিপুর চিড়িয়াখানায় মাদ্রাস ক্রোকোডাইল ব্যাংক থেকে প্রথম নিয়ে আসা হয় ৪ টি অ্যানাকোন্ডা। যা দেখতে হইচই পড়ে যায় দর্শকদের মধ্যে। কিছু দর্শকদের চিড়িয়াখানায় আসার প্রধান আকর্ষণ ছিল এই বিদেশি অতিথিরা। এরপর, চারজনের পরিবার বেড়ে হয় ১১ এ। ২০২০ সালে জন্ম নেয় ৭ টি অ্যানাকোন্ডা। এরপর, গত ১১ জুলাই অর্থাৎ গত রবিবার আলিপুরে আবারও জন্মায় ৯ টি অ্যানাকোন্ডা। সবমিলিয়ে, এখন ২০ টি অ্যানাকোন্ডা রয়েছে আলিপুর চিড়িয়াখানায়।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here