গোয়ায় তৃণমূল-কংগ্রেস মিলে ৬ দলীয় মহাজোট সম্ভাবনা

0

Last Updated on January 9, 2022 6:18 PM by Khabar365Din

সৌগত মন্ডল। খবর ৩৬৫ দিন।

- Advertisement -

গোয়ায় বিধানসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট ঘোষণা করে দিয়েছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি এক দফায় ভোটগ্রহণ হবে গোয়াতে। কিন্তু ভোট ঘোষণার দিন এই গোয়ার রাজনৈতিক সমীকরণ আমূল বদলে যাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হলো। ভাজপা শাসিত গোয়াতে ইতিমধ্যেই ভাজপা বিরোধী লড়াইয়ের জন্য তৈরি হয়েছে একাধিক রাজনৈতিক মঞ্চ। তৃণমূলের নেতৃত্বে যেমন যোগ দিয়েছে মহারাষ্ট্রবাদী গোমন্তক পার্টি, ঠিক তেমনভাবে কংগ্রেসের নেতৃত্বে ভাজপা বিরোধী লড়াইয়ের মঞ্চে যোগ দিয়েছে গোয়া ফরওয়ার্ড পার্টি, শিবসেনা এবং শারদ পাওয়ারের দল এনসিপি। এই পরিস্থিতিতে ভাজপা বিরোধী ভোট ভাগাভাগি আটকাতে তৃণমূলের সঙ্গে জোট সম্ভাবনা তুলে ধরলেন গোয়ায় কংগ্রেসের দায়িত্বপ্রাপ্ত ইনচার্জ তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদম্বরম।

গতকাল গোয়ায় তৃণমূলের দায়িত্বপ্রাপ্ত ইনচার্জ তথা লোকসভার সাংসদ মহুয়া মৈত্র ভাজপা বিরোধী লড়াই জোরদার করতে এবং ভাজপা বিরোধী ভোট ভাগাভাগি রুখতে কংগ্রেস সহ সমস্ত ভাজপা বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলিকে এক ছাতার নিচে এগিয়ে আসার প্রস্তাব দিয়েছিলেন টুইট করে। তাৎপর্যপূর্ণভাবে সেই টুইটের সঙ্গে তিনি সেখানকার রাজনৈতিক দলগুলিকে জুড়ে দিয়েছেন। যেখানে আছে— গোয়া ফরোয়ার্ড পার্টি, মহারাষ্ট্রবাদী গোমন্তক পার্টি এবং কংগ্রেসও। তাতে আরও বিষয়টি মাইলেজ পেয়ে গিয়েছে। ঠিক কী লিখেছিলেন মহুয়া?‌ গতকাল মহুয়া টুইটে লেখেন, গোয়ায় বিজেপিকে হারানোর জন্য যা যা করা সম্ভব, তা করবে তৃণমূল। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যা কথা দেন তা রাখেন। আর গোয়াতেও অতিরিক্ত মাইল হাঁটতে লজ্জা পাবে না তৃণমূল।


এর পরেই আজ পানাজিতে গোয়ায় কংগ্রেসের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রাক্তন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদম্বরম মহুয়ার টুইট প্রসঙ্গে বলেন, আমার মনে হয় ভাজপাকে হারাতে সক্ষম কংগ্রেস। কোন রাজনৈতিক দল যদি কংগ্রেসকে সমর্থন জানাতে চায়, তাহলে না বলব কেন? আগে দেখা যাক আনুষ্ঠানিকভাবে ওদের কাছ থেকে কী প্রস্তাব আসে! গত মাসেও একইভাবে তৃণমূলের সঙ্গে জোট বেঁধে ভাজপা বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে মহাজোট তৈরি করে লড়াইয়ের জন্য মমতার প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন চিদাম্বরম। গত মাসে দেশের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী চিদম্বরমের বলেন, মমতা আমার বন্ধু। আমি তাঁকে ২০-২৫ বছর ধরে চিনি। তিনি একটি বিশেষ দৃষ্টিভঙ্গিতে এগোচ্ছেন। এদিকে আমাদের একটি পদ্ধতি রয়েছে। দুটি পন্থা একত্রিত হতে পারলে দেশের জন্য ভালো হবে।

তবে তারপর থেকে আরব সাগরে অনেক জল গড়িয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন গোয়ার প্রাক্তন কংগ্রেসি মুখ্যমন্ত্রী লুইজিনহো ফেলেইরো এবং কংগ্রেস বিধায়ক রেজিনাল্ডো লোরেন্সো। তৃণমূলের হাত শক্ত করতে মমতার হাত ধরে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন গোয়ার আরেক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা এনসিপি বিধায়ক চার্চিল আলেমাও। এই পরিস্থিতিতে গোয়ার নড়বড়ে ভাজপা সরকারকে হারিয়ে ভাজপা বিরোধী সরকার গঠনের জন্য যদি তৃণমূল এবং কংগ্রেসের নেতৃত্বে মহাজোট তৈরি হয় তাহলে ভাজপার পরাজয় অবশ্যম্ভাবী। যদিও এখনো পর্যন্ত এই ধরনের কোনো মহাজোটের বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো মন্তব্য করেননি মমতা এবং তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় অথবা সোনিয়া গান্ধী এবং রাহুল গান্ধী।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে ৪০ আসনের গোয়া বিধানসভা নির্বাচনে ১৭ আসন পায় কংগ্রেস। ভাজপা জেতে ১৩ আসন। কিন্তু পরে ভাজপা সরকার গঠনের জন্যে প্রয়োজনীয় অংক জোগাড় করে ফেলে। ভাজপা ২০১৭ সালে আঞ্চলিক শক্তি এমজিপি, জিএফপি এবং দুজন নির্দল বিধায়ককে নিয়ে সরকার গঠনের জন্যে প্রয়োজনীয় ২১ আসন নিজেদের জায়গা মজবুত করে।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here