কাটবে চাষের খরা, লোকসান কাটিয়ে লাভের আশায় চাষীরা

0

Last Updated on August 8, 2022 6:34 PM by Khabar365Din

৩৬৫ দিন। সাগরে নিম্নচাপ। ভারী বৃষ্টির শঙ্কা। আর, তাতেই আশায় বুক বাঁধছেন চাষীরা। অনাবৃষ্টির কারণে ব্যাপকভাবে ক্ষতি হয় পাট এবং আমন ধানের চাষ। উৎপাদন মার খেয়েছে ব্যাপকভাবে। যার ফলে, বাড়বে চালের দাম। সবজি, মাছ, মাংস ছেড়ে চাল ডালেও পড়বে কোপ। এমনিতেই গত কয়েক মাসেই বেড়ে গিয়েছে চালের দাম।

- Advertisement -

প্রায় কেজি প্রতি ১০ টাকা করে বেড়েছে দাম। যাতে এমনিতেই হাঁসফাঁস অবস্থা মধ্যবিত্তের। সেখান থেকে বৃষ্টির পূর্বাভাস খুশি কৃষক গোষ্ঠী। আষাঢ়ের মতই বৃষ্টি শূন্য অধিকাংশ শ্রাবণ। প্রতিনিয়তই বেড়েছে ঘাটতির পাহাড়। আর, এই অভাবের প্রভাব ইতিমধ্যেই দেখতে শুরু করেছে বঙ্গবাসী। আবহাওয়া বিজ্ঞানীরা আগেই জানিয়েছিলেন, চাষবাসের ক্ষতি হবে এই অনাবৃষ্টির কারণে। বিশেষ করে পাট এবং আমন ধান চাষে। হুবহু সেই পূর্বাভাস মিলিয়েই রাজ্যে দেখা যাচ্ছে কৃষিকার্যে অনাবৃষ্টির প্রভাব।

প্রয়োজনীয় বৃষ্টির অভাবে মার খাচ্ছে পাট চাষ। জলের অভাবে মাঠেই শুকিয়ে নষ্ট হচ্ছে পাট। সেখান থেকে এই বৃষ্টির বার্তা অনেকটাই স্বস্তি ফিরিয়েছে চাষীদের। সাধারণত চাষের পর মাঠ থেকে পাট তুলে জলে ভিজিয়ে তারপর, সেখান থেকে সূক্ষ্ম সুতো বের করা হয়। কিন্তু, এই জলে ভেজানোর বিষয়টি সাধারণত বৃষ্টির জলে করা হয়। কিন্তু এবারে অনাবৃষ্টির কারণে বাইরে থেকে পাম্পের সাহায্যে জল দিতে হচ্ছে।

যার ফলে, চাষের উৎপাদন ব্যয় অনেকটাই বাড়ছে। এবং অতিরিক্ত খরচের কারণে সমস্ত পাট বাঁচানো সম্ভব হচ্ছে না। প্রসঙ্গত, অসময় বৃষ্টির অজুহাত দেখিয়ে কিছুদিন আগেই বাজারে বেড়েছে চালের দাম।এই প্রসঙ্গে মানিকতলা বাজারের ব্যবসায়ী সমিতির সহ সম্পাদক বিজয় সাউ জানান, বেড়েছে চালের দাম।

কেজি প্রতি ৮ থেকে ১০ টাকা। চালের দাম বৃদ্ধির কারণ হিসেবে অনেক ব্যবসায়ীর বক্তব্য, অসময়ের বৃষ্টির কারণে এই দাম বৃদ্ধি। অন্য এক দল ব্যবসায়ী জানাচ্ছেন, এটা কারণ হতে পারে না। বৃষ্টি হয়েছে ঠিকই। কিন্তু, সেই বৃষ্টির প্রভাব এখনই বাজারে দেখা হওয়ার কথা নয়। আরও কিছুটা সময় পর চালের দাম বাড়লে তা যুক্তিযুক্ত। তবে, এই দাম বৃদ্ধি একশ্রেণীর ব্যাবসায়ীর মুনাফা লোটার উপায় মাত্র।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here