জুলাইয়ে বর্ষার রিপোর্ট কার্ডে বিয়োগের খাতায় কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গ

0

Last Updated on August 2, 2022 5:36 PM by Khabar365Din

৩৬৫ দিন। জুলাই পেরিয়েছে। সামনে এসেছে বর্ষার রিপোর্ট কার্ড। সেখানেও জুনের ধারা বজায় রেখেই বিয়োগের খাতায় দক্ষিণবঙ্গ। এমনকি, গোটা পশ্চিমবঙ্গেই এক অবস্থা।আবহাওয়া দফতরের তথ্য অনুযায়ী, জুলাইতে গোটা রাজ্যে বৃষ্টির ঘাটতি ছিল ৪৪ শতাংশ। কলকাতায় ২৯ শতাংশ। বৃষ্টি হওয়ার কথা ছিল ৩৮৭.৪, বৃষ্টি হয়েছে ২৭৫.২। দক্ষিণের মোট ঘাটতি ৪৬ শতাংশ।

- Advertisement -

জুন শেষ হয়েছিল দুই ভিন্নধর্মী চিত্রে। আবহাওয়া দফতরের তথ্য অনুযায়ী, জুনে কলকাতায় স্বাভাবিকের থেকে ৫৯ শতাংশ কম বৃষ্টি হয়। গোটা দক্ষিণবঙ্গে সেই ঘাটতির পরিমাণ, ৪৯ শতাংশ। দক্ষিণের মধ্যে মুর্শিদাবাদ জেলায় বৃষ্টির ঘাটতি সবথেকে বেশি ছিল ৬৪ শতাংশ। গোটা পশ্চিমবঙ্গে সার্বিকভাবে স্বাভাবিকের থেকে ৯ শতাংশ কম বৃষ্টি হয়।

এই প্রসঙ্গে আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা গণেশ কুমার দাস জানান, মৌসুমী বায়ু দুর্বল। তাই, দক্ষিণবঙ্গে বর্ষা প্রবেশের পর থেকে একটানা ভারী বৃষ্টি হয়নি। যা হয়েছে বিক্ষিপ্তভাবে। মাঝে দু একবার প্রতিবেশী রাজ্যের ঘূর্ণাবর্ত এবং অক্ষরেখার দরুণ জলীয় বাষ্প ঢুকছিল সমতলে। তার ফলে উত্তরবঙ্গে একটানা ভারী বৃষ্টি এবং দক্ষিণবঙ্গে বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টি হচ্ছিল। কিন্তু, এখন সেভাবে কোন সিস্টেম না থাকায় সক্রিয় নয় মৌসুমী বায়ু।

অন্যদিকে, আজ, অর্থাৎ মঙ্গলবার পর্যন্ত উত্তরবঙ্গের পাশাপাশি দক্ষিণবঙ্গেও বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দফতর। উত্তরের কিছু জেলায় জারি কমলা সতর্কতা। এদিকে, দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় দফায় দফায় বৃষ্টি হয়েছে। বাদ যায়নি কলকাতাও। উল্লেখ্য, চলতি মরশুমে স্বাভাবিকের থেকে ৩ দিন আগে উত্তরবঙ্গে বর্ষা প্রবেশ করে। স্বাভাবিকভাবে ৬ জুন বর্ষা প্রবেশের দিন, কিন্তু এবার মৌসুমী বায়ু ঢোকে ৩ জুন।

অন্যদিকে, দক্ষিণবঙ্গে প্রথম থেকেই বিরূপ ছবি। বর্ষা প্রবেশের স্বাভাবিক দিন ১২ জুন। কিন্তু ৬ দিন পিছিয়ে গিয়ে বর্ষা প্রবেশ করে ১৮ জুন। তারপর, বিক্ষিপ্তভাবে প্রতিদিনই বৃষ্টি হয়েছে দক্ষিণবঙ্গে। কলকাতায় মাঝেমধ্যে বৃষ্টি হয়েছে। গতকাল আলিপুরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৪.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের থেকে ২ ডিগ্রি বেশি। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার সর্বোচ্চ পরিমাণ ছিল ৯১ শতাংশ।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here