সংবাদমাধ্যমে র অতি সক্রিয়তায় নিরাপত্তাহীনতায় রিয়ার পরিবার

0
734

৩৬৫দিন। সংবাদ মাধ্যমের অতি সক্রিয়তায় রীতিমতো হেনস্থা হতে হচ্ছে রিয়া চক্রবর্তীর পরিবারকে। যেভাবে সিবিআই দায়িত্ব নেওয়ার পর, রিয়া ও তার পরিবারকেও প্রায় অপরাধী বানিয়ে ফেলা হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় এবং সমাজে, তাতে বিরাট সমস্যায় পড়েছেন তারা। বৃহস্পতিবার রিয়ার বাবা ইন্দ্রজিৎ চক্রবর্তীর ওপর মিডিয়ার অ্যাটাকের ভিডিও শেয়ার করে নিজেদের বর্তমান অবস্থা দেখিয়েছেন রিয়া। তিনি সরাসরি দোষ দিয়েছেন সংবাদমাধ্যমের একাংশকে। এদিন বিকেলে এক সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রিয়া বলেন, যা করা হচ্ছে, তা তো রীতিমতো উইচ হান্টিং। এর চেয়ে ভালো আমাদের লাইন দিয়ে দাঁড় করিয়ে গুলি করে দিন। প্রশ্ন ছুড়ে তিনি বলেন, আমরা যদি এখন আত্মহত্যা করি, তার দায় কে নেবে বলতে পারেন? সুশান্ত সিং রাজপুত কেসে বর্তমানে তিনটি কেন্দ্রীয় এজেন্সি (সিবিআই, রয়েছে ইডি এবং নার্কোটিক্স ডিপার্টমেন্ট) তদন্ত করছে। রিয়ার প্রশ্ন, তদন্ত শেষ হওয়ার আগেই কিভাবে তাকে অপরাধী বানিয়ে দেওয়া যেতে পারে। তার কথায়, আমি এতদিন তদন্ত চলছে বলে প্রকাশ্যে মুখ খুলিনি। তাছাড়া আমার মনের অবস্থাও ভালো নয়। নিজে হতাশায় ভুগি আমি। প্যানিক অ্যাটাক হয়। কাল আমার মাকে হাসপাতালে ভর্তি করব এতই অসুস্থ তিনি। আমি আর সুশান্ত কাপল ছিলাম। একজনের স্বামী মারা গেলে যেমন ঝড় বয়ে যায়, তেমনটাই হচ্ছে। অথচ আমায় দুঃখটা অনুভব করার সময়ই দেওয়া হল না। রিয়া আগেই জানিয়েছিলেন, তাদের নিরাপত্তার দাবিতে সান্তাক্রুজ পুলিশ স্টেশনে গিয়েছিলেন তার বাবা। সে সময়েই মিডিয়া হামলে পড়ে তার ওপর। এরপরেই মুম্বই পুলিশকে ট্যাগ করে ঘটনার একটি ভিডিও আপলোড করেন তিনি। এমনকি তদন্তকারী সংস্থার সমন পাঠালেও, তারা ভয়ে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে যেতে পারছেন না, জানিয়েছেন তিনি। আমি ইডির সঙ্গে সহযোগিতা করেছি, এনসিডির সঙ্গেও করব, সিবিআইয়ের সঙ্গেও করব। যেতে তো দিন, বলেন তিনি। আর এর জন্য সরাসরি মিডিয়ার অতি বাড়াবাড়িকে দায়ী করছেন। এদিন বিকেলে তার বাড়ি থেকে বেরোনোর রাস্তাকে সুরক্ষার খাতিরে দড়ি দিয়ে ঘিরে দিয়েছে পুলিশ।

- Advertisement -
Advertisement