কেন্দ্রের প্রতিহিংসামূলক নীতি,প্রাক্তন মুখ্যসচিবের বিরুদ্ধে চক্রান্ত, ট্রাইব্যুনালের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আলাপন

0
180

৩৬৫ দিন। কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিহিংসামূলক রাজনীতির বিরুদ্ধে মাথা নত না করে আইনি পথেই লড়াইয়ের রাস্তায় হাঁটলেন বাংলার প্রাক্তন মুখ্য সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। সেন্ট্রাল অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনালের দিল্লিতে অবস্থিত প্রিন্সিপাল বেঞ্চের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলেন রাজ্যের অবসরপ্রাপ্ত মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। কলকাতা হাইকোর্ট সূত্রে জানা গিয়েছে, আগামীকাল এই মামলার শুনানির সম্ভাবনা রয়েছে। প্রসঙ্গত, বাংলার মুখ্য সচিব পদে অবসরগ্রহণের আগের দিন রাতারাতি তাকে দিল্লিতে কর্মী বর্গ দপ্তরে যোগ দিতে নির্দেশ দিয়েছিল কেন্দ্রের ভাজপা সরকার। কিন্তু রাজ্য সরকারের সঙ্গে কোনো রকম আলোচনা না করেই তার উপরে শাস্তিমুলক এই বদলির নির্দেশ চাপিয়ে দেওয়ার বিরোধিতা করে নিজের নির্ধারিত দিনে অবসর গ্রহণ করেন আলাপন বাবু। এরপর থেকে আলাপনের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করে কেন্দ্রীয় সরকার। তার বিরোধিতা করে সেন্ট্রাল অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেছিলেন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। এই মামলা কলকাতা থেকে দিল্লিতে সরানোর জন্য সেন্ট্রাল অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনালের প্রিন্সিপাল বেঞ্চে আবেদন করেছিল কেন্দ্রের কর্মী বর্গ দপ্তর। এই আবেদনের ভিত্তিতে গত ২২ অক্টোবরই কলকাতা থেকে মামলা স্থানান্তরের নির্দেশ দেয় সেন্ট্রাল অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনালের দিল্লিতে অবস্থিত প্রিন্সিপাল বেঞ্চ। আগামীকাল অর্থাৎ ২৭ অক্টোবর দিল্লিতে এই মামলার শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। এবার সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করেই হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলেন আলাপন।

- Advertisement -

চলতি বছরে ইয়াস ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ দেখার জন্য প্রধানমন্ত্রীর ডাকা রিভিউ বৈঠকে বাংলার তৎকালীন মুখ্য সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় উপস্থিত ছিলেন না বলে অভিযোগ করে আলাপনের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে তদন্ত শুরু করেছে কেন্দ্রের মোদি সরকার। যদিও যে রিভিউ বৈঠক নিয়ে এই সমস্যার সূত্রপাত, সেই বৈঠক প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী নিজে সরকারিভাবে বিবৃতি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছিলেন যে তিনি এবং মুখ্যসচিব দুজনেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে অন্য একটি পূর্বনির্ধারিত সরকারি অনুষ্ঠানে যাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি নিয়ে কলাইকুন্ডা থেকে বেরিয়ে যান। তবে মমতার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক লড়াইয়ে পরাজিত হওয়ার পরে ইগোর লড়াই জেতার জন্য কলাইকুন্ডা থেকে নরেন্দ্র মোদী ফিরে যাওয়ার পরেই রাজ্য সরকারের সঙ্গে কোনো রকম আলোচনা না করে মুখ্য সচিব পদে কর্মরত আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে দিল্লিতে কেন্দ্রীয় সরকারের সরাসরি নিয়ন্ত্রণাধীন ডিপার্টমেন্ট অফ পার্সোনেল এন্ড ট্রেনিং-এ যোগ দিতে বলা হয়। কিন্তু তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশিত পদে যোগ না দিয়ে নির্ধারিত ৩১ মে তারিখেই মুখ্য সচিব পদে অবসর নেওয়ার সিদ্ধান্তে অনড় থাকেন। আনুষ্ঠানিকভাবে অবসর নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই মমতা রাজ্য মন্ত্রিসভার অনুমোদন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্য উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ করেন।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here