তৃণমূলে এসে বাবুলের চিত্তশুদ্ধি, বিজেপির কাজ কর্মে আমি হতাশ, অভিষেক আর দিদির সঙ্গে কথা বলে আমি রাজনীতিতে ফিরলাম

0
193

- Advertisement -

অর্পিতা বন্দ্যোপাধ্যায়


৩৬৫ দিন। শনিবার সকালে এগারোটার সময় অভিষেকের সঙ্গে পাক স্টিট অফিসে দেখা করে। অভিষেকের সঙ্গে দীর্ঘক্ষন আলাপ আলোচনা করার পর অভিষেকের হাত ধরে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিলেন বাবুল সুপ্রিয়। তৃণমূল ভবনে শনিবার সাংবাদিক বৈঠকে বাবুল সুপ্রিয় জানান–আমি বলেছিলাম রাজনীতি ছাড়ছি ।লাস্ট 4 দিনে যা ঘটার ঘটেছে। ডেরেক আমার খুব ভালো বন্ধু তার সঙ্গে আমার মেয়ের স্কুল ভর্তি নিয়ে আলোচনা চলছিল। সেখান থেকেই কথাবাত্রা শুরু হয়। তারপর দিদি ও অভিষেকের সঙ্গে আমার কথা হয় অনেক অপরচুনিটি ও অনেক সুবিধে এবং বিশ্বাসের সাথে কাজ করার কথা বলেছেন। আমার মিডিয়ার বন্ধুরা বা আমার ফ্যামিলির লোকেরা আমার পলিটিক্স ছাড়ার কথা বলেছিলেন। আমি মন থেকেই রাজনীতি ছেড়েছিলাম। অনেক ভেবে চিন্তে আবার আমি রাজনীতিতে এলাম। মমতা দিদি ও অভিষেক যা বলবেন সেই মতন কর্মসূচি আমি পালন করব। আমি খুব আশাবাদী আমি গ্রেটফুল যে তৃণমূলের সঙ্গে দিদির সঙ্গে কাজ করতে পারব। আগামী দিনে দল যা বলবে যে দায়িত্ব দেবে আমি সেই দায়িত্ব পালন করব। আমি যে দলে ছিলাম সেখানে কাজ করতে অসুবিধা হচ্ছিল জীবনের এমন কোন দিন আসে মানুষের কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয় ঠিক আমারও তাই হয়েছিল। আমার মন থেকে পার্টি ছেড়ে দেওয়ার কথাটা কোনো নাটক বা ভাওতাবাজি ছিল না। আমি পরের দিনই সিআরপিএফ ছাড়া চিঠি সব জমা দিয়ে দিয়েছিলাম আপনারা সবাই সেটা দেখেছিলে ন।

আমার কাছে যে অপরচুনিটি এসেছে আমি তাই ভেবে রাজনীতিতে ফিরে এসেছি আপনারা অনেকেই অনেক রকমের মতামত দেবেন তার ওপর আমার কোনো কন্ট্রোল নেই। আমি নিশ্চয়ই সাংসদ পর থেকে ইস্তফা দেব। আপনারা সবাই দেখেছেন আমি সাত বছরে অনেক কাজ করেছি বাংলা জন্য মন থেকে করেছি পার্লামেন্টে গিয়েও অনেক প্রশ্নও করেছি। রাজনীতিতে অনেক ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে অনেকেই করে থাকেন আমিও ভুল করেছিলাম। আমি যখন তৃণমূল জয়েন করেছি তখন কোনমতেই আসানসোলের সাংসদ পদ এর টিকিট নিয়ে আমি এগোবো না। আমি জানি যা রুল আছে যা নিয়ম আছে সেটা আমি নিশ্চয়ই পালন করব। কাল-পরশু আমার জন্য কিছু প্রোগ্রাম দেড়েক রেখেছে সেগুলো আমি নিশ্চয়ই করব। দিদির সাথে আমার কথা হয়েছে,আমি সোমবার দেখা করব। আমি একদম ই আশা করিনি আমাকে অভিষেক বা দিদি এত ভালো করে দলে জায়গা দেবে। বাবুল স্পষ্ট জানিয়েছেন আমি বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর যেভাবে কাজ করেছিলেন তাতে তাকে সঠিক জায়গায় দেওয়া হয়নি। তাই রাজনীতিতে কোথাও এবার থামতে হবে তাই মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর আমি মন থেকেই রাজনীতি ছেড়ে দিয়েছিলাম। আমি বাংলায় কাজ করতে চাই যেহেতু আমি কাজ করতে পারছিলাম না তাই আমি মন থেকেই রাজনীতি ছেড়ে ছিলাম কিন্তু দিদি এবং অভিষেক আমাকে সেই জায়গাটা দিচ্ছেন যেখানে আমি মন দিয়ে বাংলার হয়ে বাংলার মানুষের জন্য কাজ করে উঠতে পারব তাই আমি গর্বের সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের জয়েন করেছি। আমি জানি আমাকে নিয়ে বিজেপি ও অন্যান্য দল থেকে প্রচুর কটাক্ষ শুনতে হবে বা আসবে, আমার মনে যেটা চলছে সেটাই আমি করবো। আমি সব সময় আমার মনের কথা শুনে চলি তাই আমি কোন কিছু কথায় কান দেবো না।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here