মুসলিম ভােট কাটাতে
বিজেপির অস্ত্র
বাঘের সামনে ফেউ
বিজেপির সাথে মিম

0

Last Updated on November 20, 2020 1:25 PM by Khabar365Din

৩৬৫ দিন। বাংলার ২৯৪ বিধানসভা আসনের মধ্যে সংখ্যালঘু ভােট প্রায় ৩০ শতাংশ। বাংলায় বিজেপি ভােট পাবে না ধরে নিয়ে তৃণমূলের ভােট কেটে রাজ্য সরকার গড়ার স্বপ্ন দেখছে শিখন্ডীর মত আসাদউদ্দিন ওয়াইসির মিমকে সামনে রেখে। বিজেপি যেইতিমধ্যেই বাংলায় মুসলিম ভােট ব্যাংকের আশা ছেড়ে দিয়েছে তা কার্যত স্বীকার করে নিয়ে দিলীপ ঘােষের দাবি, বিজেপিতে এখনাে আস্থা খুঁজে পান না মুসলিমরা। যদিও তৃণমূলের ভােট কাটার জন্য মিমের সংগঠন বাড়াতে বিজেপিটাকা ঢালছে এই অভিযােগ অস্বীকার করে তাঁর দাবি, মিম রাজনৈতিক দল। সাংবিধানিক অধিকারেই বাংলায় এসে কাজ করলে কেউমানা করতে পারবে না। পরিসংখ ্যান বলছে, বাংলার ২৯৪টি বিধানসভা আসনের মধ্যে ৮০ থেকে ৮৫টিতে ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করে বাংলাভাষী মুসলিম সম্প্রদায়। আরও প্রায় ৩০টি আসনে আংশিকভাবে তাঁদের প্রভাব রয়েছে। গত বছরের লােক্সভা নির্বাচনের নিরিখে দেখা যাচ্ছে যে সমস্ত বিধানসভা কেন্দ্রে মুসলমান ভােটারের সংখ্যা কুড়ি শতাংশের বেশি, সেখানে কার্যত দাঁত ফোটাতে পারেনি বিজেপি। তাই বাংলা দখলের স্বপ্ন দেখতে গিয়ে আগামী বছরের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের এই মুসলমান ভােটব্যাংকে ভাঙ্গন ধরানাের জন্য গােটা দেশে বিজেপির বি টিম হিসেবে বিরােধী ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক দলগুলির ভােট কাটার জন্য আসাদুদ্দিন ওয়াইসি মিমকে ব্যবহার করে যে সাফল্য এসেছে, সেইফর্মুলা বাংলাতেও প্রয়ােগ করতে চাইছে বিজেপি।

- Advertisement -

বিজেপির গােপন আঁতাতে মিম বাংলার বিধানসভা ভােটে ৮০ মুসলিম অধ্যুষিত আসনই টার্গেট করেছে

বাংলার যে সমস্ত বিধানসভা কেন্দ্রে ২০শতাংশ বা তার বেশি মুসলিম ভােটার রয়েছে, তেমন ১৪৭ বিধানসভার সহ মােট ১৫০ আসনে প্রার্থী দিতে ইতিমধ্যেই প্রস্তুতি শুরু করেছে আসাদউদ্দিন ওয়াইসির মিম। এছাড়াও বাংলার মুসলমান সম্প্রদায়ের ওপর এ হুগলি ফুরফুরা শরীফের যথেষ্ট প্রভাব থাকায় দিন দুয়েক আগেই হঠাৎ করে আব্দুল মান্নানকে সঙ্গে নিয়ে ত্বহা সিদ্দিকীর সঙ্গে দেখা করতে দৌড়ে যান অধীর চৌধুরী। কিন্তু মমতার আমলে রাজ্যে মুসলমানদের সামগ্রিক উন্নয়নের পক্ষে বরাবর সওয়াল করা ত্বহা সিদ্দিকী অধীর মান্নানের সঙ্গে দেখা করেননি। হুগলি, মুর্শিদাবাদ, মালদহ এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনার মুসলমান অধ্যুষিত এলাকাগুলােতে যথেষ্ট প্রভাব থাকা ফুরফুরা শরীফের প্রধান ত্বহা সিদ্দিকী সাফ জানিয়ে দিয়েছেন আগামী বছরের বিধানসভা নির্বাচনে জিতে আবার ক্ষমতায় আসবে তৃণমূল। কারণ বাংলায় তৃণমূলের আগে মুসলমান সম্প্রদায়ের উন্নয়নের জন্য কোন রাজনৈতিক দল এত কাজ করেনি।


গত লােকসভা নির্বাচনে বাংলার প্রতিটি বিধানসভা এলাকায় প্রাপ্ত ভােটের নিরিখে দেখা যাচ্ছে রাজ্যের অন্তত ৬২ বিধানসভা আসনে মুসলমান ভােটারের সংখ্যা ২০-৩৪ শতাংশ। যার মধ্যে তৃণমূল এগিয়ে ছিল ৩৭ আসনে, বিজেপি ২৪ এবং কংগ্রেস মাত্র ১ আসনে।আবার রাজ্যের অন্তত ৮৫বিধানসভা আসনের মুসলমান ভােটারের সংখ্যা ৩৫ শতাংশেরও বেশি। মূলত সরকার গড়ার ক্ষেত্রে সবথেকে বড় ফ্যাক্টর হয়ে উঠতে পারে এই ৮৫ বিধানসভা আসনের মধ্যে বেশি আসন কোন দল জেতোখানেই অন্যদের থেকে বহু যােজন এগিয়ে রয়েছে তৃণমূল। গত লােকত্সভা ভােটে প্রাপ্ত ভােটের নিরিখে এই ৮৫ বিধানসভায় তৃণমূলের স্ট্রাইক রেট আইপিলে রােহিতশর্মার স্ট্রাইকরেটর থেকেও বেশি। প্রায় ৮৩.৫ শতাংশ। এই আসন গুলির মধ্যে বিজেপি এগিয়ে ছিল মাত্র ৬ বিধানসভায়। একটু হিসেব করলেই দেখা যাবে করণদিঘি, বৈষ্ণবনগর, মুর্শিদাবাদ, মানিকচক, হেমতাবাদ এবং দেহের মত যে কটি বিধানসভা কেন্দ্রে গত লােকসভায় মুসলিম ভােটার সংখ্যা গরিষ্ঠতা থাকা সত্বেও বিজেপি এগিয়ে ছিল, তার প্রত্যেকটি দীর্ঘকাল ধরে সিপিমের লাল দুর্গ বলে পরিচিত ছিল এবং সিপিএম এর সম্পূর্ণ ভােট দিয়েছে বিজেপি প্রার্থীর পক্ষে।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here