রানাঘাটে মুখ্যমন্ত্রীর হুঙ্কার
ওটা নাটুকে ভারতীয় জাঙ্ক পার্টি

0

Last Updated on January 11, 2021 9:10 PM by Khabar365Din

৩৬৫ দিন। ভারতীয় জনতা পার্টি নয়, ওটা আসলে ভারতীয় জাঙ্ক পার্টি। আমরা কোন নাটক করি না, দিল্লি থেকে প্রাইভেট প্লেন এসে, ফাইভ স্টার হোটেলের খাবার, হিমালায়ান ওয়াটারের জল খেয়ে নকল কৃষক দরদী প্রেম দেখাচ্ছে বিজেপি। সোমবার রানাঘাটের জনসভা থেকে বিজেপির এই নকল কৃষক প্রেমের তীব্র প্রতিবাদ জানালেন তৃণমূল সুপ্রিমো। রানাঘাটের জনসভা থেকে তৃণমূল নেত্রী যা বললেন,

- Advertisement -

১. আমিও অনেক সময় গরিব মানুষের বাড়িতে যাই। কিন্তু নাটক করি না। এরা সেজেগুজে ফাইভ স্টারের খাবার নিয়ে, প্রাইভেট প্লেনে করে এসে, হিমালায়ান ওয়াটারের জল খায়, দাম কত? খাচ্ছে, পাশে হিমালয়ের ওয়াটারের বোতল রাখা আছে। আমি ৬ টাকা দামের প্রানধারার জল খাই, আমরা মেলায়, উৎসবে এই জল দিই সকলকে। জিন্দেগি এত সহজ নয় রে ভাই। জিন্দেগি সফল করার জন্য রাস্তার ধুলোতে নামতে হয়। কোথায় থাকেন আপনারা যখন লক্ষ লক্ষ কৃষক ঠান্ডার মধ্যে আন্দোলন করছে, মারা যাচ্ছে। বিজেপি থাকলে ৭৬ এর মন্বন্তর দেখা যাবে। তোমরা মানুষ খুন করে কালিমালিপ্ত হও।

২. তৃণমূলের থাকলেই সব কালো হয়ে যাচ্ছে, আর বিজেপিতে গেলেই সব ভাল! বিজেপি যেন সানলাইট, নির্মা ওয়াশিং মেশিন, ভাজপা ওয়াশিং মেশিন। ভাজপা নয় আসলে ওরা বাটপার।

. কৃষকদের ওপর জুলুম চলছে। আমরা কৃষকদের আন্দোলনকে সমর্থন করছি। ওরা একবার নোটবন্দি করেছে, কোভিডে সকলকে গৃহবন্দী করেছে, তারপর হবে জেলবন্দি। যেমন ট্রাম্প হেরে গিয়ে বলছে জিতেছি, তেমনই হেরে গিয়ে বলবে জিতেছি। দুজনেই একদম এক, কোন পার্থক্য নেই। সারাদেশে একনায়কতন্ত্রের সরকার চালাচ্ছে।

৪. ওরা নতুন বিল এনেছে, এখনও কার্যকর করতে পারেনি। আসামে এনআরসি, এনপিআর করেছে। আপনারা নিশ্চিন্তে থাকুন, আমরা এনআরসি, এনপিআর করতে দেব না। এটা আমাদের সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্ত। আপনাদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়া এত সহজ নয়।

৫. এতদিন উদ্বাস্তুদের নিয়ে সেই চিন্তাই করে নি। শুধু ভোট রাজনীতি করেছে। আমরা রাজ্যের কলোনি গুলিকে পাট্টা দিয়েছি। আইসিডিএস প্রকল্প তুলে দিতে চেয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এই প্রকল্পে ৯০ শতাংশ টাকা আমরা দিই। একটা রাজ্য দেখান, যেখানে বিনা পয়সায় খাদ্য, বিনা পয়সায় স্বাস্থ্য, বিনা পয়সায় জমির দলিল থাকার ব্যবস্থা হয়। ওরা ভয় দেখাচ্ছে, বলছে নাগরিকত্ব প্রমাণ না হলে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে তাড়িয়ে দেবে। আমরা ওদের ঘাড় ধাক্কা দিয়ে তাড়িয়ে দেব নির্বাচনের মাধ্যমে।

৬. ওরা ভারতের মধ্যে আমাকে ভয় পায়। ওরা জানে আমি নিজেকে বেচি না, আমি মরে যাব তবু, আমি বাংলার মানুষকে বেচতে দেব না। বাংলাকে দখল করার বিরুদ্ধে আপনারা গর্জে উঠুন।

৭. নির্বাচনের জন্য বাইরে থেকে বহিরাগত নেতারা এসেছে। বাংলা বলতে পারে অনেকে, দেখে দেখে নিয়ে আসা হয়েছে। বলছে সোনার বাংলা তৈরি করবে। বাংলায় কিছু তৈরি করার আর বাকি নেই। সোনার বাংলা তৈরি হয়ে গেছে। এখন বিশ্ববাংলা তৈরি হচ্ছে। তোরা দিল্লি আগে সামলা, ওরা আসবে না, আমাদের সরকার থাকবে। তপশীলী, নমঃশূদ্র, ছাত্র যৌবন কেউ ওদের ভোট দেবে না। যদি বিনা পয়সায় খাদ্য চান, তবে তৃণমূলকে ভোট দিন। কৃষক, শ্রমিক, সাধারণ মানুষ যদি ভালো থাকতে চান, তৃণমূলকে ভোট দিন।

. দু-একজন বাদ দিলে, মিডিয়া ওদের কাছে বিক্রি হয়ে গেছে।‌

৯. স্বাস্থ্য সাথী নিয়ে কোনো সমস্যা হলে থানায় অভিযোগ করুন। জেলার নার্সিংহোম গুলোকে স্বাস্থ্য পরিকল্পনার মধ্যে আনতে হবে। যদি তারা পরিষেবা না দিতে চায়, প্রয়োজনে তাদের লাইসেন্স বাতিল করা হবে।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here