করোনা পরিস্থিতি নিয়ে নবান্নের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানালেন, আগামী ১৫ দিন গুরুত্বপূর্ণ, সংক্রমণ বাড়লে কড়া পদক্ষেপ

0
215

৩৬৫ দিন। আগামী ১৫ দিন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তারপরেও সংক্রমণ বাড়লে কড়া পদক্ষেপ করতে হবে। বেশ কিছু বিধিনিষেধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তী পরিস্থিতি বিচার করে প্রয়োজনে আরও কিছু ঘোষণা করা হতে পারে। বাংলায় করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি এবং তার নিয়ন্ত্রণে রাজ্য সরকারের পদক্ষেপ প্রসঙ্গে এভাবেই সাধারণ মানুষকে সতর্ক হওয়ার আবেদন জানালেন মমতা। করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকের পরে আজ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা আক্রান্ত সবার দ্রুত আরোগ্য কামনা করছি। আমি নিজেই জানি না কার কার কোভিড হয়েছে। ৩ দিন জ্বর থাকছে, ৭ দিন আইসোলেশনে থাকতে বলেছে কেন্দ্র। একটা বিমানে একজনের থেকে অন্যরা আক্রান্ত হয়েছেন। প্রয়োজন ছাড়াই হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন অনেকে। মাস্ক অবশ্যই পরুন, ছেলেরা মাথায় ক্যাপ পরুন। মহিলারা চুল ঢেকে রাখুন, ভয় পাবেন না। ৭-৮ দিনের মধ্যে ৪৫ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। যদিও হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২ হাজারের কিছু বেশি মানুষ। কোভিডের জন্য ১৯৪টি হাসপাতাল আমরা চিহ্নিত করেছি। পুলিশের কয়েকজন উচ্চপদস্থ কর্তাও আক্রান্ত হয়েছেন। খুব প্রয়োজন থাকলে তবেই বাইরে বেরোবেন। এই রোগটা মারাত্মক নয়, কিন্তু দ্রুত ছড়াচ্ছে। বাড়িতে কেউ আক্রান্ত হলে, বাকি সদস্যরাও বাড়িতে থাকুন। সামান্য জ্বরে ভয় পাবেন না, খাওয়া দাওয়া ভাল করে করুন।

লোকাল ট্রেন প্রসঙ্গে

আমি যদি ট্রেন বন্ধ করে দিই, তাহলে বলবেন লোক আসতে পারছে না। আর ট্রেনে যখন আসছে সবাই গাদাগাদি করে আসছে। এবার বলুন আমরা কোনটা করব! এগোলেও দোষ, পিছোলেও দোষ! আর লোক কতদিন জীবন-জীবিকা বন্ধ করে বসে থাকবে? গত তিন বছর ধরে এই জিনিস চলছে। ট্রেন না চালালে বলবে ট্রেন বন্ধ রেখেছে। আর ট্রেন চালালে ভিড় হবে। মানুষের জীবন-জীবিকার কথাও তো ভাবা প্রয়োজন। কত মানুষ কলকাতায় আসে কাজের সূত্রে। বলুন আমরা কোন দিকে যাব? এগোলেও দোষ, পিছলেও দোষ।

রাজ্য জুড়ে প্রশাসনিক ব্যবস্থা

প্রশাসন জোর করে ফাইন করে মাস্ক পরাতে পারে না। মাস্ক পরার ব্যাপারে মানুষকেই সচেতন হতে হবে। আগামীকাল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক কালীঘাটের বাড়ি থেকেই করব। করোনা চিকিৎসায় ৩২ হাজারের বেশি বেড তৈরি আছে। রাজ্যে ১০ কোটি ৭৭ লক্ষের বেশি মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। প্রথম ডোজ পেয়েছেন ৬ কোটি ৫৪ লক্ষ মানুষ। ৪০ শতাংশ মানুষ এখনও দ্বিতীয় ডোজ নেননি। ২৩.১৭ শতাংশ পজিটিভিটি রেট বেড়েছে। কন্টেনমেন্ট জোন রয়েছে ৪০৩টি। ওয়ার্ক ফ্রম হোমে জোর দিন।

চারিটি বিগিনস ফ্রম হোম

কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে আজ নবান্নে মমতা বলেন, ধরুন, বউয়ের কোভিড হয়েছে। দেখা যাচ্ছে, স্বামী বহাল তবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ভাবছে, আমি তো নেগেটিভ। আমি তো মিশতেই পারি। বাড়িতে কারও হলে তাঁরও যে আইসোলেশনে থাকা উচিত, এটা আমরা ভুলে গিয়েছি। এই প্রসঙ্গেই নিজের বাড়ির কথা বলেন মমতা। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, এই কাজ আমার বাড়িরই এক জন করেছে। আমার ছোট ভাইয়ের বউয়ের কোভিড হয়েছে। আর বাবুন এখানে সেখানে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আমি খুবই অফেন্ডেড হয়েছি। এটা পছন্দ করি না আমি। চ্যারিটি বিগিনস অ্যাট হোম। আমি বলে দিয়েছি, কাল থেকে কোথাও বেরোবে না। আমাদের প্রত্যেককে সচেতন হতে হবে।

মমতাকে নিয়ে করোনা গুজব

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আমাকে নিয়েও খবর হয়েছে শুনলাম। লেখা হয়েছে, আমার নাকি কোভিড হয়েছে! আমার কিচ্ছু হয়নি। এখানে তো লুকোচুরির ব্যাপার নেই। ওটা সম্পূর্ণ মিথ্যে খবর। আমি পুরোপুরি সুস্থ। তবে প্রচুর মানুষের হচ্ছে। আমার দু’জন ড্রাইভারেরই হয়েছে।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here