মুখ ঘোরাচ্ছে ঘূর্ণিঝড়, উপকূলের জেলায় ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা, বইবে সর্বোচ্চ ১০০ কিমি প্রতি ঘণ্টায় ঝোড়ো হাওয়া

0

Last Updated on October 23, 2022 7:27 PM by Khabar365Din

- Advertisement -

৩৬৫ দিন। মুখ ঘোরাচ্ছে ঘূর্ণিঝড়। রাজ্যের জন্যে কিছুটা স্বস্তি। বাংলা উপকূল ঘেঁষে সিত্রাং এগোবে বাংলাদেশের দিকেই। আবহাওয়া দফতরের তথ্য অনুযায়ী, আজই, অতি গভীর নিম্নচাপের রূপ নিতে চলেছে সিত্রাং। অবস্থান করবে পূর্ব মধ্য এবং দক্ষিণ পূর্ব বঙ্গোপসাগরে। এরপর, উত্তর উত্তর পূর্ব দিকে বেঁকে গিয়ে ২৪ তারিখ অর্থাৎ কালীপুজোর দিন সকালে মধ্য বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। এরপর, উত্তর উত্তর পূর্ব দিক বরাবর এগিয়ে বাংলাদেশ উপকূল, তিনকোনা দ্বীপ এবং সানদ্বীপ পেরোবে ২৫ অক্টোবর সকালে। শেষ খবর অনুযায়ী, নিম্নচাপটি পর্ট ব্লেয়ার থেকে ৩৭০ কিমি, সাগর দ্বীপ থেকে ৮৬০ কিমি এবং বাংলাদেশ থেকে ৯৪০ কিমি দূরে অবস্থান করছে।

এর প্রভাবে উপকূলের জেলায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। দফতরের তথ্য অনুযায়ী, ২৪ তারিখ, দীপাবলিতে দুই ২৪ পরগনা, জেলার দু এক জায়গায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা। কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে।দুই মেদিনীপুর জেলায় ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা। হলুদ সতর্কতা। কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, এবং বাকি জেলায় মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এদিন, দুই ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ঝড়ের গতিবেগ থাকবে ৪৫ থেকে ৫৫ কিমি প্রতি ঘন্টা, সর্বোচ্চ ৬৫ কিমি। কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় ঝোড়ো হাওয়া বইবে ৩০-৪০ কিমি প্রতি ঘন্টা। ২৫ তারিখ দুই ২৪ পরগনা, নদিয়া জেলায় ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা। থাকছে হলুদ সতর্কতা।

কলকাতায় মাঝারি বৃষ্টি, ৪০-৫০ কিমি, সর্বোচ্চ ৬০ কিমি বেগে বইবে দমকা হাওয়া

কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা।দুই ২৪ পরগনা, জেলায় ৮০-৯০ কিমি ঘন্টায়, সর্বোচ্চ ১০০ কিমি ঘণ্টা বেগে বইবে ঝোড়ো হাওয়া। পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ৬০-৭০ কিমি, সর্বোচ্চ ৮০ কিমি প্রতি ঘন্টা। কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় ৪০ থেকে ৫০ কিমি ঘন্টায়, ৬০ কিমি ঘণ্টা বইবে ঝোড়ো হাওয়া। ২৩ তারিখ থেকে মৎস্যজীবীদের জন্যে থাকছে লাল সতর্কতা। যারা বেরিয়ে পড়েছেন তাদের ২২ তারিখের আগে ফিরে আসতে বলা হয়েছে।

২৪ এবং ২৫ তারিখ সুন্দরবন এলাকায় ফেরি চলাচল বন্ধ থাকতে পারে। দীঘা, মন্দারমনি, শঙ্করপুর, সাগর এলাকায় এই দুদিন পর্যটকদের জন্যে নিষেধ থাকছে। গত শুক্রবার এক বুলেটিন প্রকাশ করে দফতর জানায়, উত্তর আন্দামান সাগর এবং সন্নিহিত দক্ষিণ আন্দামান সাগর এবং দক্ষিণ পূর্ব বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে একটি নিম্নচাপ। এরপর পশ্চিম উত্তর পশ্চিম দিক বরাবর এগিয়ে, ২২ তারিখ নাগাদ গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে। ২৩ তারিখ অতি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে।

উল্লেখ্য, রাজ্যে চলছে বর্ষা বিদায় পর্ব। এবার স্বাভাবিকের থেকে বেশ কিছুটা সময় পিছিয়ে বর্ষা প্রবেশ করে দক্ষিণবঙ্গে। উত্তরবঙ্গে তুলনামূলক অনেক আগে প্রবেশ করে মৌসুমী বায়ু। প্রসঙ্গত, সপ্তাহ খানেক আগে দক্ষিণবঙ্গের বেশকিছু জেলায় বৃষ্টি হয়েছে। মহানগরী ভাসে মেঘের দাপটে। পশলা খানেক ভারী বৃষ্টি। সন্ধ্যেবেলায় কলকাতা এবং পার্শ্ববর্তী জেলায় চলে মুষলধারার বর্ষণ। যদিও, দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ সহ ভারী বর্ষণ চলে এদিন।

এর আগে ষষ্ঠীর সন্ধেতেই মহানগরীর বুক চিরে নামে ঝমঝমিয়ে মেঘ ভাঙা বৃষ্টি। এই ধারা অব্যাহত রেখে পুজোর চারদিনে ভোগায় বৃষ্টি।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here