বিদ্যুতের মতে, অর্থ সাহায্য করে না যারা, সেইসব প্রাক্তনীরা কোন উপকারে লাগবে?

0

Last Updated on January 2, 2021 12:04 AM by Khabar365Din

রাজনৈতিক প্রতিবেদন

- Advertisement -

বিশ্বের যে কোন বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিশ্বজুড়ে পরিচিতি পায় সেখান থেকে শিক্ষা লাভ করা অথবা সেই প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাদান করা বিখ্যাত শিক্ষাবিদদের পরিচিতির জন্য। অক্সফোর্ড, ক্যামব্রিজ, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্ষেত্রেই এই কথাটি প্রযোজ্য। একইভাবে প্রযোজ্য আমাদের বাংলার বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কেও।কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের সময় থেকেই ভারতের বিভিন্ন বিখ্যাত পরিবারের পাশাপাশি পৃথিবীর প্রায় সমস্ত দেশ থেকে শিক্ষা লাভের জন্য বিশ্বভারতীতে ছুটে এসেছেন পরবর্তীকালে নিজ নিজ ক্ষেত্রে স্বনামধন্য বহু বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব। শুধু শিক্ষালাভ নয় রবীন্দ্রনাথের শান্তিনিকেতনের পরিবেশে শিক্ষাদান করে অভিজ্ঞতা সঞ্চয়ের জন্য পৃথিবীর নানা প্রান্ত থেকে বহু শিক্ষাবিদ নানার সময় এসেছেন বিশ্বভারতীতে। যাদের খ্যাতির পাশাপাশি বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে শান্তিনিকেতন এবং বিশ্বভারতীর খ্যাতিও।বিশ্বভারতীর বর্তমান উপাচার্য অবশ্য এই সমস্ত বিখ্যাত প্রাক্তনীদের নিয়ে খুব একটা ভাবিত নন কোনদিন। তার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হলো গুজরাতি বা রাজস্থানী বানিয়া কত টাকা ঢালতে পারেন বা রাজনৈতিকভাবে কতটা সুবিধা পাইয়ে দিতে পারেন সেটাই।

বিশ্বভারতীর প্রাক্তনী কয়েকজন বিশ্বখ্যাত ছাত্র ছাত্রী ও অধ্যাপক


ইন্দিরা গান্ধী 

সত্যজিৎ রায় 

অমর্ত্য সেন 

মহাশ্বেতা দেবী 

হিন্দি সাহিত্যিক এবং পদ্মশ্রী পাওয়া শিবানী 

সাগরময় ঘােষ 

সুচিত্রা মিত্র 

নবকান্ত বড়ুয়া 

সুবিনয় রায় 

রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা 

সৈয়দ মুজতবা আলী 

বিনােদবিহারী মুখার্জি 

কণিকা বন্দ্যোপাধ্যায়

গৌর গােপাল ঘােষ 

নীলিমা সেন 

সুধী রঞ্জন দাস (সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি) 

রামকিঙ্কর বেইজ 

ক্ষিতিমােহন সেন ছিলেন উপাচার্য 

প্রশান্তচন্দ্র মহলানবিশ 

নন্দলাল বসু 

অমিয় চক্রবর্তী 

গুরু কেলু নায়ার 

সােমনাথ হােড় 

যােগেন চৌধুরী 

শক্তি চট্টোপাধ্যায়

তাই উপাচার্য পদে বসার পর থেকে একদিকে যেমন খোদ রবীন্দ্রনাথকেই শান্তিনিকেতনে বহিরাগত বলে লিখিত বিবৃতি দেওয়ার পাশাপাশি অমর্ত্য সেনের মতো বিশ্ববরেণ্য নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করে সমাজের চোখে তাকে কলঙ্কিত করার জন্য উঠেপড়ে লাগেন। বর্তমান উপাচার্য মাস কয়েক আগে লিখিতভাবে জানিয়ে দিয়েছিলেন, কে কবে বিশ্বভারতীর প্রাক্তনী ছিলেন তা নিয়ে মাথা ব্যথা করার কোন প্রয়োজন নেই যদি না তারা প্রয়োজনে টাকা দিয়ে সাহায্য করেন। অর্থাৎ শুধুমাত্র শিক্ষাবিদ বা সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে খ্যাতি পেলেই হবে না বিশ্বভারতীতে তার আমলে সম্মান পেতে হলে টাকা দিতে হবে। তাই অমর্ত্য সেনকে অপমান করার পাশাপাশি আজ পর্যন্ত পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে শান্তিনিকেতনের যে সমস্ত বিখ্যাত প্রাক্তনী রয়েছেন, তাদের কারো পরামর্শ নেওয়ার প্রয়োজন বোধ করেন না বর্তমান উপাচার্য।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here