শাকিল আহমেদের নিন্দা, ছেলেমেয়েদের জীবন নিয়ে খেলছে সুভাষ দত্তরা, মাছ ভাত খেয়ে মাছ রক্ষার ভন্ডামি বন্ধ হোক

0

Last Updated on May 24, 2022 10:56 PM by Khabar365Din

সাক্ষাৎকার সৌগত মণ্ডল

- Advertisement -

৩৬৫ দিন। রবীন্দ্র সরোবর লেক (Rabindra Sarobar Lake) এর মাছের জীবন বাঁচানোর অজুহাতে পরিবেশবিদ সুভাষ দত্তের (Subhash Dutta)দায়ের করা মামলার জেরে রেস্কিউ বোট (Rescue Boat) না থাকায় প্রাণ গিয়েছে দুই কিশোরের। স্বাভাবিকভাবেই এখনো এই মর্মান্তিক ঘটনার ধাক্কা সামলে উঠতে পারেনি কলকাতার ক্রীড়াজগৎ তথা বাংলার রোয়িং এর সঙ্গে যুক্ত ক্রীড়াবিদরা। তেমনই এই রবীন্দ্র সরোবর লেক থেকে নিজের রোয়িং কেরিয়ার শুরু করে বিশ্ব রেকর্ড তৈরি করা কলকাতার ছেলে শাকিল আহমেদ (Shakil Ahmed) এখনো ছোট ছোট দুটি ছেলের অসহায় ভাবে মৃত্যুবরণ করার শোক সামলে উঠতে পারেননি। আমাদের সঙ্গে আলোচনায় কার্যত পরিবেশবিদ হওয়ার নামে এইভাবে বাংলার ক্রীড়া জগতের ক্ষতি করার জন্য সুভাষ দত্ত এবং সুমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দায়ী করলেন শাকিল।

আপনি দীর্ঘদিন রোয়িং করছেন। এইভাবে দুটি ছেলের ডুবে মারা যাওয়ার ঘটনা আগে কখনো ঘটেছে?
শাকিল – দেখুন আমি গত প্রায় ২৯ বছর ধরে রোয়িং করছি। রবীন্দ্র সরোবর থেকে শুরু করে পৃথিবীর অধিকাংশ দেশেই রোয়িং প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার পাশাপাশি বিশ্ব রেকর্ড করেছি। কিন্তু রবীন্দ্রসরোবর এর প্রায় দেড়শ বছরের ইতিহাসে এমন ঘটনা আগে কখনো ঘটেনি। আমরা ছোটবেলায় যখন এখানে প্র্যাকটিস করতাম তখনো প্রতিযোগিতার সময় ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অথবা সেনাবাহিনীর নিযুক্ত বিশেষজ্ঞরা রেস্কিউ বোট নিয়ে সঙ্গে থাকতেন। আমি নিজেই অন্তত ৭-৮ বার বোট উল্টে পড়ে গিয়েছি। সঙ্গে সঙ্গে রেস্কিউ বোট গিয়ে আমাদের উদ্ধার করেছে।

প্রশ্ন – এমন ঘটনার জন্য কাকে দায়ী করবেন?
শাকিল – দায়ী করা অনেক পরের বিষয়। তবে যেভাবে বাড়িতে মাছ ভাত খেয়ে এসে রবীন্দ্র সরোবরের লেকের জলের মাছ বাঁচানোর নাটক করছেন সুভাষ দত্ত এবং সুমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়, ওদের জন্যই এমন ঘটনা ঘটেছে এটা স্পষ্ট করে বলা যায়। ওই ভদ্রমহিলা সারাক্ষণ রবীন্দ্রসরোবরে ঘুরে বেড়ান হাতে খাতা-কলম নিয়ে আর বাচ্চারা একটু দৌড়ঝাঁপ করলেও তাদেরকে আটকে দেন এবং অভিভাবকদের ডেকে হুমকি দেন। নিজেরা তো কখনো খেলাধুলো করেননি, তাই বাংলার ক্রীড়াজগৎকে এইভাবে শেষ করছেন শুধুমাত্র নিজেদের প্রচার এর লোভে।

প্রশ্ন – আপনি নিজে গোটা পৃথিবী জুড়ে রোয়িং প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন। কোন সরোবরে কি এমন ভাবে মোটর বোট নামানোয় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে?
শাকিল – শ্রীলংকা থেকে শুরু করে ফিলিপিনস, ফ্রান্স সহ ইউরোপের অধিকাংশ দেশে আমি প্রতিযোগিতায় নেমেছি। কোন লেকের জলে মাছ বাঁচানোর জন্য মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলার জন্য মোটর বোট নামানোর উপরে কোনো নিষেধাজ্ঞা দেখিনি। বাংলার ছেলেমেয়েরা এখানে রোয়িং শিখে আন্তর্জাতিক স্তরে প্রতিযোগিতায় নামছে। মেডেল আনছে। সেটা এই সমস্ত তথাকথিত পরিবেশবিদদের সহ্য হচ্ছে না। এমনিতেই এখন খেলাধুলোর জায়গা কমে যাচ্ছে। করোনার জন্য লকডাউন এর সময় যখন প্রায় দু’বছর রবীন্দ্র সরোবর এর সমস্ত ক্লাব বন্ধ ছিল তখন কেন লেকের মাছ মারা যাচ্ছিল সেই উত্তর কি এই পরিবেশবিদরা দিতে পারবেন? লেকের জল পৌঁছে গিয়ে মাছ এবং গাছ মারা যাওয়ার ঘটনা দেখে রবীন্দ্র সরোবরের ক্লাবগুলো নিজেরা উদ্যোগ নিয়ে সেখানে ফোয়ারা বসিয়েছিল জল শোধন করার জন্য। সেই ঘটনাতেও আপত্তি জানাতে ছুটে এসেছিলেন এই পরিবেশবিদরা।
এরা আসলে জানে না কি করতে চাইছে! শুধুমাত্র নিজেদের কিছু স্বার্থসিদ্ধির জন্য আর মিডিয়াতে প্রচারের লোভে বাচ্চা ছেলে মেয়েদের এবং ভাবী ক্রীড়াবিদদের জীবন নষ্ট করতে নেমেছে এরা।

প্রশ্ন – দুটি ছেলের মারা যাওয়ার ঘটনার প্রেক্ষিতে এখন কি করা উচিত বলে আপনি মনে করেন?
শাকিল – আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে যেখানে পেট্রোল চালিত রেসকিউ বোট নামানোর ক্ষেত্রে, সেই বিষয়ে আমার কিছু বলা উচিত নয়। তবে বাংলা খেলাধুলোর সাথে এবং বাচ্চা বাচ্চা ছেলে মেয়েদের জীবন বাঁচানোর স্বার্থে দীর্ঘকাল ধরে এখানে যেমন পেট্রোল চালিত রেস্কিউ বোট থাকতো তা থাকার প্রয়োজন রয়েছে বলে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here