অভিষেকের হুঙ্কার বিপ্লবকে, ভিসা লাগবে নাকি?

0

Last Updated on August 8, 2021 3:14 PM by Khabar365Din

আগরতলা থেকে রিপোর্ট ও ছবি অমিত বন্দ্যোপাধ্যায়

- Advertisement -

৩৬৫ দিন। আগরতলা। ত্রিপুরায় পা দিলেই জেলে ভরা হচ্ছে। কিন্তু এসব করে লাভ নেই। বিপ্লব দেব চান বিরোধীরা তাঁর কাছ থেকে ভিসা নিয়ে তবেই ত্রিপুরায় ঢুকুন। বিজেপি সরকার ত্রিপুরাকে নিজেদের পৈতৃক সম্পত্তিতে পরিণত করেছে। বিজেপির ক্ষমতা থাকলে আমাদের আটকে দেখাক। শেষ রক্তবিন্দু পর্যন্ত দিয়ে আমরা লড়াই করে যাব। এভাবেই ৭ দিনের মধ্যে দ্বিতীয়বার ত্রিপুরায় এসে পৌঁছে ভাজপা শাসিত ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী ও প্রশাসনের দিকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। গত সোমবার আগরতলায় বসে ভাজপা শাসিত ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের নাম করে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন, প্রতিমাসে ৩-৪ বার আসবো ত্রিপুরা। ক্ষমতা থাকলে আটকে দেখান। অভিষেকের এই হুঁশিয়ারির পরেই গতকাল ত্রিপুরায় ভাজপা আশ্রিত দুষ্কৃতীরা নৃশংস আক্রমণ চালায় তৃণমূলের ছাত্র ও যুব নেতৃত্ব দেবাংশু ভট্টাচার্য, সুদীপ রাহা ও জয়া দত্তের উপরে। আক্রমণের পর যুব তৃণমূলের ১১ জনকে আজ ভোররাতে গ্রেফতার করে ত্রিপুরার খোয়াই থানার পুলিশ। দলের যুব সৈনিকদের পাশে থাকতে ইতিমধ্যে ত্রিপুরা পৌঁছে গিয়েছেন ব্রাত্য বসু, দোলা সেন এবং কুণাল ঘোষ। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই সকাল 11 টা নাগাদ ত্রিপুরায় পা রাখেন অভিষেক। আগরতলায় পৌঁছেই ভাজপা শাসিত ত্রিপুরা প্রশাসনের তীব্র সমালোচনা করে অভিষেক বলেন, ত্রিপুরা সমাজবিরোধীদের মুক্তাঞ্চল। ত্রিপুরায় গণতন্ত্র নেই। যারা এঁদের চ্যালেঞ্জ করেছে তাদের জেলে ঢোকানো হচ্ছে। গণতন্ত্রের কী অবস্থা দেশের মানুষ দেখছে। ত্রিপুরায় পা দিলেই জেলে ভরা হচ্ছে। কিন্তু এসব করে লাভ নেই। বিপ্লব দেব চান বিরোধীরা তাঁর কাছ থেকে ভিসা নিয়ে তবেই ত্রিপুরায় ঢুকুন। বিজেপি সরকার ত্রিপুরাকে নিজেদের পৈতৃক সম্পত্তিতে পরিণত করেছে। বলেও মন্তব্য করেন তিনি। বিপ্লব দেব গণতন্ত্রের কথা বলেন কী করে? এখানে বিরোধীদের কিছু করতেই দেওয়া হয় না। সাতদিন হয়নি দ্বিতীয় বার ত্রিপুরায় এলাম। শেষ রক্তবিন্দু পর্যন্ত লড়াই করব।
যারা কথায় কথায় দিল্লি মধ্যপ্রদেশ থেকে এসে বাংলায় গণতন্ত্র নিয়ে কথা বলেন, তাঁরা আসুন ত্রিপুরায়, দেখুন।

খোয়াই থানায় অভিষেক

আগরতলায় নেমে অভিষেক সোজা চলে যান খোয়াই থানায়। সেখানেই আটক আছেন দেবাংশুরা। সেখানে ঢুকে অভিযোগ ভারপ্রাপ্ত অফিসারের ঘরে যান। রীতিমতো উত্তেজিত হয়ে অভিষেক দেবাংশুদের কীসের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তা জানতে চান। একইসঙ্গে দাবি করেন, দ্রুত ছেড়ে দিতে হবে তৃণমূল যুব নেতাদের। এরই মধ্যে খোয়াই থানায় সামনে অভিষেককে গো ব্যাক স্লোগান দেন ভাজপা কর্মীরা। খোয়াই থানায় পৌঁছে তৃণমূলের ছাত্র ও যুব নেতাদের গ্রেফতারের কারণ জানতে চাইলেও ত্রিপুরা পুলিশের শীর্ষ আধিকারিকরা কোনো নির্দিষ্ট কারণ জানাতে না পারলে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁদের বলেন, আপনার কাঁধে অশোকস্তম্ভ,পদ্মফুল নয়।
প্রসঙ্গত, তৃণমূলের ১৪ নেতাকে গত রাতে খোয়াই থানার পুলিশ ধলাবিল চৌহমুনী এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। তাদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮, প্যানডেমিক অ্যাক্টের ৩ ধারায় মামলা করা হয়েছে। গ্রেফতার হওয়া ১৪ জনকে রবিবার খোয়াই চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তোলা হবে। তবে অভিষেক খোয়াই থানায় ব্রাত্য বসু, দোলা সেন এবং দলের অন্যান্য নেতাদের নিয়ে পুলিশ আধিকারিকের কাছে দাবি জানান তৃণমূল নেতাদের ওপর থেকে জামিন অযোগ্য ধারায় করা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। যতক্ষণ না জামিন অযোগ্য ধারা প্রত্যাহার করা হবে ততক্ষণ তিনি অবস্থান করবেন থানাতেই।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here