কয়লা কাণ্ডের তদন্ত সরাতে, হাজিরা এড়াতে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হল ইডি

0
188

৩৬৫ দিন। নয়াদিল্লি। কয়লা কাণ্ডে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকদের কলকাতা পুলিশের সামনে জিজ্ঞাসাবাদ এড়ানোর জন্য দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলো এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। সেই সঙ্গে পহেলা কাণ্ডে বিভিন্ন অভিযোগে অভিযুক্ত ইডি কর্তারা বাংলায় এলে গ্রেফতারের আশঙ্কা থাকায় যাবতীয় কয়লা কাণ্ডের তদন্ত প্রক্রিয়া দিল্লিতে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার আবেদন জানালেন দিল্লি হাইকোর্টে। একইসঙ্গে কয়লা কান্ড যুক্ত থাকা অথবা কয়লা কান্ড সম্পর্কে তথ্য জানার জন্য জিজ্ঞাসাবাদের অজুহাতে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, তাঁর স্ত্রী রুজিরা, বাংলার আইন মন্ত্রী মলয় ঘটক এবং রাজ্য পুলিশের একাধিক উচ্চপদস্থ আধিকারিক যারা বিভিন্ন সময় কয়লা কাণ্ডের তদন্ত করেছেন – তাদের বারেবারে দিল্লিতে ডেকে পাঠানোর সুবিধা হবে যদি দিল্লি হাইকোর্টের নির্দেশ নিয়ে গোটা মামলার তদন্ত প্রক্রিয়া দিল্লিতে স্থানান্তর করা সম্ভব হয় কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে।

- Advertisement -

প্রসঙ্গত কয়েকদিন আগেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর স্ত্রী দিল্লিতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নোটিশ পাওয়ার পরে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছিলেন বর্তমান করণা মহামারীর সময় দুটি শিশু সন্তানকে কলকাতায় রেখে তার পক্ষে দিল্লিতে যাওয়া সম্ভব নয়। শুধু তাই নয় এর পাশাপাশি রুজিরা কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা কে মনে করিয়ে দিয়েছিলেন যে তদন্তে সাহায্যের জন্য তাকে দিল্লিতে ডাকা হয়েছে সেই কয়লা কাণ্ডের যাবতীয় ঘটনাক্রম এবং তদন্ত প্রক্রিয়া বাংলার মধ্যে সীমাবদ্ধ। দিল্লিতে কোন ভাবেই এই তদন্তের এক্তিয়ার নেই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার। এই সমস্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে আজ দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলো কেন্দ্রীয় তদন্তকারী এজেন্সি। একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে বাংলার খনি অঞ্চল অর্থাৎ আসানসোল এবং দুর্গাপুরের একাধিক নেতার সঙ্গে যোগসাজশ করে কয়লা মাফিয়াদের সঙ্গে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট কর্তাদের আঁতাতের অভিযোগ উঠেছিল। এরপর থেকেই কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ মতো তদন্ত নেমে কলকাতা পুলিশ একাধিকবার কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডির জয়েন্ট ডিরেক্টর পদমর্যাদার আধিকারিকদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য লালবাজারে তলব করলেও তারা বিভিন্ন অজুহাতে এড়িয়ে গিয়েছেন।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here