চালু হচ্ছে সত্যজিৎ রায় ফিল্ম ও টেলিভিশন ইইন্সটিটিউট এর আগরতলা ক্যাম্পাস

0

Last Updated on September 9, 2022 11:21 PM by Khabar365Din

- Advertisement -

৩৬৫ দিন। আগরতলা।চলচ্চিত্রের প্রতি ত্রিপুরার মানুষের আগ্রহের বিষয়টিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য রাজ্য সরকার ইতিমধ্যে কলকাতার সত্যজিৎ রায় ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন ইনস্টিটিউট’র সঙ্গে মিলে রাজ্যে একটি শাখা স্থাপন করতে যাচ্ছে।

এর জন্য ত্রিপুরা রাজ্য সরকার ৫ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকার এককালীন অনুদান মঞ্জুর করেছে বলে জানিয়েছেন তিনি।প্রাথমিকভাবে নজরুল কলার ক্ষেত্রে ইনস্টিটিউট চালু করা হবে। এখানে পরিকাঠামো গড়ার জন্য পূর্ত দপ্তরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, আগরতলা পৌর নিগমকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সৌন্দর্যায়নের জন্য।ছাত্র-ছাত্রীদের ভর্তির জন্য ২০সেপ্টেম্বর ২০২২ ইংরেজি তারিখে সংবাদ মাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হবে বলে জানানো হয়েছে। প্রথম দিকে সর্বকালীন সময়ের কোর্সগুলো চালু করা হবে।আপাতত এই কোর্স গুলি চার সপ্তাহ থেকে ৮ সপ্তাহ মেয়াদের হবে। ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ২০ অক্টোবর পর্যন্ত ইচ্ছুক ছাত্র-ছাত্রীরা আবেদন জমা করতে পারবেন। ২১থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীদের আবেদনের পর্যবেক্ষণ এবং ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

এর জন্য গত কয়েক মাস ধরে ত্রিপুরা সরকার এবং ইনস্টিটিউটের মধ্যে আলোচনা চলছে। গত পাঁচ সেপ্টেম্বর কলকাতায় ইনস্টিটিউটে গিয়ে আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন ত্রিপুরা সরকারের তথ্য সংস্কৃতি দপ্তরের মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী।শুক্রবার আগরতলার মহাকরণে এক সাংবাদিক সম্মেলনের একথা মন্ত্রী নিজেই জানিয়েছে। তিনি আরো বলেন কলকাতায় আয়োজিত সর্বশেষ বৈঠকে স্থির হয়েছে যে খুব দ্রুত আগরতলায় ইনস্টিটিউটের একটি শাখা চালু করা হবে। ২০২২ এর ৭নভেম্বর থেকে ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস শুরু হবে।

প্রথম কনভোকেশন হবে ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ইংরেজি তারিখে। ফিল্ম এপ্রিসিয়েশন, স্ক্রিন এক্টিং, প্রোডাকশন ম্যানেজমেন্ট এবং এংকারিং ও নিউজ রিডিং এই কোর্সগুলি প্রথম অবস্থায় চালু করা হবে। এদিন সাংবাদিকদের তরফে মন্ত্রীর কাছে জানতে চাওয়া হয় রাজ্যে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে কিনা সরকারের, এর উত্তরে তথ্য সংস্কৃতি মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী বলেন প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাংলাদেশ, প্রতিবেশী রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ মনিপুরে ভালোভাবেই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি চলছে।

সুশান্ত বলেন যদি দেখা যায় আগামী দিনের রাজ্যের এ ধরনের ইন্ডাস্ট্রি চালু সম্ভাবনা রয়েছে তাহলে অবশ্যই এই উদ্যোগ নেওয়া হবে। তাই প্রাথমিকভাবে ফিল্ম ইনস্টিটিউট গড়ে তোলা হচ্ছে রাজ্য সরকারের তরফে যাতে প্রশিক্ষিত মানব সম্পাদ পাওনা যায়। এদিনের এই সাংবাদিক বৈঠকে ত্রিপুরা সরকারের তথ্য এবং সংস্কৃতি দপ্তরের সচিব প্রদীপ চক্রবর্তী, ভারপ্রাপ্ত অধিকর্তা সন্তোষ দাস মন্ত্রী সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here