সৌরভ ভার্সেস কোহলি
সংবাদমাধ্যমকে সৌরভের অনুরোধ, আর জলঘোলা করবেন না জল্পনা এবার বন্ধ করুন

0
99

৩৬৫ দিন। দুদিন আগেই সাংবাদিক সম্মেলনে বোমা ফাটিয়েছেন বিরাট কোহলি। তাঁকে না জানিয়ে, আলোচনা না করেই অধিনাকত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। যাতে তিনি অপমানিত হয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে না খেলার কথা ভেবেছিলেন। কোহলির এই বক্তব্যে দেশ জুড়ে হইহই পরে যায়। বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভের দিকে সরাসরি অভিযোগের আঙ্গুল তোলার পরেও সৌরভ মুখ খোলেননি এই বিষয়ে। তবুও বিভন্ন মহল থেকে বিশেষ করে প্রাক্তন তারকা কপিল দেব ও সুনীল গাভাস্কর সৌরভের কাছে সত্যটা প্রকাশ্যে আনার কথা বলেছেন। কোহলি তাঁর টুইটে লিখছেন, মেয়ের জন্মদিন বলে সফরে যাব না, এই রটনা কে বা কারা ছড়ালো জানতে চাই। কাকে উদ্দেশ্য করে কোহলি একথা বলছেন তা সহযেই অনুমেয়। সৌরভ এই গোটা বাক যুদ্ধে নিশ্চুপ থাকার স্টান্স নিয়েছেন। তিনি কোনও কমেন্টে যাননি। তবে গতকাল বলেছেন, এবার থামা উচিত। সংবাদ মাধ্যমের এবার এই প্রসঙ্গ আর টানা উচিত নয়। বিসিসিআই ও চাইছে না এই প্রসঙ্গে আরও জলঘোলা হোক। দল সফর করছে। এর প্রভাব খেলায় পড়লে মুশকিল। হারলে বোর্ডের দিকেই আঙ্গুল উঠবে। বোর্ড চাইছে এখন বিষয়টাকে ধামাচাপা দিয়ে, টিম ফিরলে তারপরে এগোনো হবে।


ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলির বিতর্কিত সাংবাদিক সম্মেলনে হতবাক বিসিসিক্সআই। সংকট মোকাবেলার জন্য বিকল্প ব্যবস্থাগুলি ভেবে দেখছে তারা এবং সেইসঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ টেস্ট সিরিজের আগে মাঠের বাইরে নাটকীয় ঘটনা এড়িয়ে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করছে তারা।ভারতীয় টেস্ট অধিনায়ক কোহলি তিন ম্যাচের সিরিজের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকায় যাওয়ার আগে একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন যে তাকে টি টোয়েন্টি দলের অধিনায়কের পদ থেকে সরে যাওয়া থেকে আটকানো হয়নি। তার বক্তব্য বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলীর বক্তব্যের সম্পূর্ণ বিপরীত যা তিনি গণমাধ্যমে বলেছিলেন।প্রজন্মের ভারতীয় ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় তারকা ও বর্তমান টেস্ট অধিনায়ক এবং সভাপতি পদে থাকা প্রাক্তন অধিনায়কের বক্তব্যের মধ্যে বিরোধিতা অতীতে আগে কোনওদিন ঘটেনি। জানা গেছে যে বুধবার যা ঘটেছে তাতে বিসিসিআই-এর কেউই খুশি নন তবে তারা বুঝতে পেরেছেন যে তাদের কাছ থেকে কোনও কঠোর প্রতিক্রিয়া বিষয়টির সমাধানের ক্ষেত্রে ক্ষতিকারক হতে পারে। কোহলি কাল সন্ধ্যায় দক্ষিণ আফ্রিকায় পৌঁছেছেন যখন কলকাতায় বোর্ড সভাপতি স্পষ্ট জানিয়েছিলেন যে তিনি কোনও প্রকাশ্য বিবৃতি দেবেন না। জানা গেছে যে গাঙ্গুলি এবং বিসিসিআই সেক্রেটারি জয় শাহ সহ বিসিসিআইয়ের সিনিয়র কর্মকর্তারা বুধবার একটি জুম কলে কথা বলেছেন যেখানে যৌথভাবে কোনও প্রেস কনফারেন্স বা প্রেস রিলিজ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here