গত ৭০ বছরে অ্যাথলেটিক্সে এই প্রথম জ্যাভলিনে সোনা নীরজের, কুস্তিতে ব্রোঞ্জ বজরং পুনিয়া’র

0
141

৩৬৫ দিন। টোকিও। অসম্ভব রিদমিক এক দৌড় শুরু করলেন তিনি, ডান হাতে কোনাকুনি ৯০ ডিগ্রি কোণে জ্যভলিনটা ধরে ছুটলেন ট্র্যাক ধরে, তারপর বা পা আগে নিয়ে ৪৫ ডিগ্রি এঙ্গেলে হওয়ায় ভাসিয়ে দিলেন ফ্লুরোসেন্ট হলুদ রঙের জ্যভলিন। নিজে ফিরেও তাকালেন না ৭৮ মিটার পাড় করে মাটিতে গেঁথে যাওয়া বর্শার দিকে। দু হাত তুলে নিজের আত্মবিশ্বাস যেন ছড়িয়ে দিলেন, নীরজ বুঝে গিয়েছেন, সোনা ভেদ করে ফেলেছেন।
দীর্ঘ শতকের অপেক্ষার শেষে অবশেষে ট্র্যাক এন্ড ফিল্ডে সোনা এল অলিম্পিকে। ১৯০০ সালে দবরাজজি টাটার উদ্যোগে প্যারিস অলিম্পিকে ভারতের হয়ে ব্রিটিশ স্পোর্টসম্যান নরম্যান প্রিচার্ড ২০০ মিটার দৌড়ে রুপো যেতেন। ১৯৬০ অলিম্পিকে শতাংশের ভগ্নাংশে চতুর্থ হন। তারপর নীরজের হাত ধরে ২০২১এ শাপমোচন। দুর্দান্ত দুই থ্রোয়ে সোনার খরা কাটিয়ে দিলেন নীরজ চোপড়া। অলিম্পিক্সের ইতিহাসে প্রথম ভারতীয় হিসেবে ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডের কোনও ইভেন্টে পদক জিতলেন। তা-ও একেবারে সোনা জিতে নিলেন তিনি। শনিবার ফাইনালে দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় ৮৭.৫৮ মিটার ছুড়ে পদক জিতলেন তিনি। এর আগে অ্যাথলেটিক্সে ভারত সোনা তো দূর, কোনও পদকই জেতেনি। সেই আক্ষেপ মিটিয়ে দিলেন নীরজ।

- Advertisement -

শনিবারের আগে পর্যন্ত অলিম্পিক্সে মাত্র ৯টি সোনা ছিল ভারতের। এর মধ্যে আটটি ছিল হকিতে। ব্যক্তিগত বিভাগে মাত্র একটি সোনা ২০০৮ বেজিং অলিম্পিক্সে শুটিংয়ে জিতেছিলেন অভিনব বিন্দ্রা। এর পর বার বার তিনি আক্ষেপ করেছেন ব্যক্তিগত বিভাগে কেউ সোনা না জেতায়। সেই স্থান পূরণ করলেন নীরজ। দ্বিতীয় ভারতীয় ক্রীড়াবিদ হিসেবে ব্যক্তিগত ইভেন্টে সোনা জিতলেন তিনি। ব্রোঞ্জ পদকের লক্ষ্যে কাজাকিস্তানের দৌলত নিয়াজবেকোভের বিরুদ্ধে লড়াই ছিল বজরং পুনিয়ার। ২০১৯ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে সেমিফাইনালে এই প্রতিদ্বন্দ্বীর বিরুদ্ধে হেরেছিলেন বজরং। কিন্তু রাশিয়ায় কয়েক মাস আগে হারিয়েছিলেন দৌলতকে।আজ গতকালের ভুল আর করেননি বজরং। অত্যধিক ডিফেন্সিভ না হয় সুযোগ পেলেই বিপক্ষের পা লক্ষ্য করে আক্রমণ করেছেন। সেই লাভ পেলেন তিনি। ৮-০ ব্যবধানে জিতে ব্রোঞ্জ নিশ্চিত করলেন ভারতের পুরুষ কুস্তির এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড় নাম।

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here